মেইন ম্যেনু

দাউদকান্দির গৌরীপুরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড

২৩ জুন মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মি. সময়ে দাউদকান্দির ঐতিহ্যবাহী ব্যবসাস্থল গৌরীপুর বাজারে এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় ২টি ফ্রিজের দোকানসহ ৮টি দোকানের কোটি টাকার মালামাল পুড়ে গেছে বলে জানায় দোকান মালিকগণ। এসময় অগ্নিকান্ডে ১৫জন মারাত্মকভাবে আহত হন। উপস্থিত সচেতন জনতা আহতদের উদ্ধার করে গৌরীপুর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। পরে আহতদের মধ্যে সৌদিয়া রিফ্রিজেরেটর এর কর্মচারি মোঃ সাদ্দাম হোসেন (২৬) সহ ৬ জনকে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকা প্রেরণ করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গৌরীপুর বাজারে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর জোনাল অফিসের সামনে সৌদিয়া রিফ্রিজেরেটর-এর দোকানে বিদ্যুতিক শর্ট শার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটলে মুহুর্তের মধ্যে আগুন আশেপাশের দোকানগুলোয় ছড়িয়ে পড়ে। এসময় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হয়ে মোঃ সাদ্দাম হোসেনসহ বেশ কয়েকজনের শরীর ক্ষত-বিক্ষত হয়ে যায়। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে গৌরীপুর হাসপাতালে পেঁঁৗঁছায়।

খবর পেয়ে দাউদকান্দি ও হোমনা ফায়ার সার্ভিসের দু’টি ইউনিট, দাউদকান্দি মডেল থানা পুলিশ ও গৌরীপুর ফাঁড়ি পুলিশ প্রায় দুই ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে রাত ৯ টায় আগুন নিয়ন্ত্রেণে আনে।

এ অগ্নিকান্ডের ফলে প্রায় ১ ঘন্টা ঢাকা- গৌরীপুর- হোমনা সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। বিদ্যুৎ উপ-কেন্দ্রটি সন্নিকটে হওয়ায় বন্ধ করে দেওয়া হয় বিদ্যুৎ সরবরাহ। প্রায় একটানা ৩ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকার পর রাত ১১ টায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করে কর্তৃপক্ষ।

এব্যাপারে স্থানীয় একজন সচেতন নাগরীক বলেন, ‘গৌরীপুরের খাল-বিল ও পুকুর সবই ভরে ফেলেছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। সরকারও কোন কোন জলাশয় লিজ দিয়ে দেওয়ায় লিজ গ্রহণকারীরা যাচ্ছেতাইভাবে পানি নিষ্কাষণ করার ফলে প্রয়োজনের সময় পানি পাওয়া যায় না। তাছাড়া গোমতী নদীটি দূরবর্তী হওয়া ইচ্ছা করলেও সহসা পানি আনা সম্ভব হয় না।

আমরা দেখে আসছি, গৌরীপুরে যখনইএ কোন অগ্নিকান্ডর ঘটনা ঘটেছে তখনই পানির সমস্যায় হিমশিম খেতে হয় অগ্নিনির্বাপক কর্মীদের। এছাড়া উৎসুক জনতার ভীড়ের কারণেও আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার বিষয়টি এবং পতিতদের উদ্ধার করা কঠিন হয়ে যায়’। তিনি আরো বলেন, ‘এ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি সরকারের উর্ধ্বতন মহলকে ভেবে দেখতে আমি অনুরোধ করছি’।






মন্তব্য চালু নেই