মেইন ম্যেনু

দিনে নেশার খরচ দেড় লাখ, যৌনসঙ্গী ৫০০০+

উদ্দাম জীবন। নারী, মদ, ড্রাগ, কোকেন। একের পর এক বিবাহ বিচ্ছেদ। অতিমাত্রায় নেশা করে হাসপাতালে। বারবার রিহ্যাবে যাওয়া। এবং দু’দিন পরেই সেখান থেকে পালানো। তারপর আবার উদ্দাম। হলিউড অভিনেতা চার্লি শিনের তো এটাই জীবন। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরেই। কিন্তু তাঁর এই উদ্দাম যৌনাচার-ই কেড়ে নিতে পারে প্রায় ৫ হাজার মহিলার প্রাণ। হ্যাঁ, এত দিন পর চার্লি স্বীকার করলেন, তিনি HIV পজিটিভ। এবং এই মারণ রোগ সম্পর্কে তিনি ৪ বছর ধরেই অবগত। তা সত্ত্বেও তিনি নিয়মিত একাধিক নারীর সঙ্গে রাত কাটিয়েছেন।

৮০-র দশক থেকে হলিউডে চার্লি শিন বড় নাম। শুধু অভিনয়ের জন্যই নয়, তাঁর উদ্দাম জীবনের জন্য তাঁকে অনেকে ‘প্রিন্স অফ হলিউড’-ও বলে থাকেন। চার্লি শিনের উদ্দাম জীবনকে দস্তুরমতো সমীহ করেন তাবড় ‘প্লেবয়’রাও। ‘ন্যাশনাল এনকোয়্যারার’-কে দেওয়া একটি সাক্ষাত্‍‌কারে মঙ্গলবার বিস্ফোরক স্বীকারোক্তিতে বলেছেন, ‘আমি গত চার বছর ধরে প্রায় ৫ হাজারের বেশি মহিলার সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছি। আমি জামতাম আমি HIV পজিটিভ।’

চার্লির কথায়, ‘আমার যখন ১৫ বছর বয়স, তখন আমি প্রথম সেক্স করি। ক্যান্ডি নামে এক দেহব্যবসায়ীর সঙ্গে। আমার দারুণ লাগত। বাবার সঙ্গে কোথাও বাইরে গেলেও, রাতে বাবা ঘুমিয়ে পড়লে আমি কলগার্ল ডেকে নিতাম। কল গার্লদের সঙ্গে রাত কাটাবো বলে বাবার ক্রেডিট কার্ডও চুরি করেছিলাম। এখনও আমার ওই জীবন ভালো লাগে।’ এরপরই তিনি স্বীকার করেন, তিনি HIV পজিটিভ হওয়া সত্ত্বেও নারীসঙ্গ ভালোবাসেন বলে কাউকে কিছু বলেননি। দেদার যৌন আনন্দ উপভোগ করেছেন

চার্লির জীবনের একটি ঘটনা বললে মোটামুটি পরিস্কার হয়ে যাবে এই হলিউড অভিনেতার জীবনযাপনের রীতি। চার্লি জানিয়েছেন, তিনি একদিনে ১, ৪০০ পাউন্ড (ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ১ লক্ষ ৪২ হাজার টাকা) খরচ করেন কোকেনে। কমপক্ষে ১৫ হাজার পাউন্ড (ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ১৬ লক্ষ টাকা) খরচ করেন পর্নস্টারদের সঙ্গে রাত কাটানোর জন্য। চার্লির কথায়, ‘আমি সেক্স ভালোবাসি। আমি এর পিছনে খরচ করতে পারি। তাই করি।’






মন্তব্য চালু নেই