মেইন ম্যেনু

দিনে সৎ-সাহসী নেভি অফিসার, রাতে পর্নস্টার

পেশায় তিনি একজন সৎ-সাহসী নৌ অফিসার। কর্মের স্বীকৃতি হিসেবে একাধিক পুরস্কারও পেয়েছেন। বাহিনীতে তার অনেক নাম ও ডাক। কিন্তু হঠাৎ-ই সেই অর্জন যেন ম্লান হয়ে গেল। কারণ, তিনি ইতোমধ্যেই ২৯টি পর্ন ছবিতে অভিনয় করেছেন। ফলে তার বিরুদ্ধে তদন্তে নেমেছে বাহিনীর উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা। তবে তার স্ত্রীর অভিযোগ পর্ন ছবিতে অভিনয়ের কথা বাহিনীর বড় অফিসারেরা জানতেন।

তিনি মার্কিন নেভির চিফ স্পেশাল ওয়ারফেয়ার অফিসার জোসেফ স্মিড। ছবিগুলোতে তিনি ‘জয় ভোম’ ছদ্মনাম ব্যবহার করতেন। তবে নেভির বাইরে কাজ কররা জন্য আদৌ তিনি কোনও অনুমতি নিয়েছেন কিনা সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে বলা হয়, স্মিড একজন দক্ষ অফিসার। ২৩ বছর ধরে রয়েছেন নেভিতে। অনেক মেডালও পেয়েছেন তিনি। দেশের বাইরে গিয়ে যুদ্ধ করে আসার অভিজ্ঞতাও রয়েছে তার। নেভিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে তার ভূমিকা থাকে।

এমনকি মার্কিন নেভি এর ওয়েবসাইটে মুখপাত্র হিসেবেও রয়েছেন তিনি। কিন্তু গত সাত বছরে ছদ্মনামে তাকে অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে পর্ন মুভিতে। অনেকগুলি ছবিতে তার সঙ্গে রয়েছেন তার স্ত্রী পর্নস্টার জুয়েলস জেড। ভিডিওগুলি দেখেছেন অন্যান্য কমান্ডোরাও। তার স্ত্রী’র দাবি কমান্ডোরা এ বিষয়টা জানা সত্ত্বেও কোনও আপত্তি করে না ও বিষয়টা গোপন রাখে। কমান্ডোদের সঙ্গে এবিষয়ে খোলামেলা কথাবার্তা হয় বলেও জানিয়েছেন স্ত্রী জেড।

ওই প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, বিয়ে করার পর পর্ন ছবি করা ছেড়ে দেন স্ত্রী। দু’জনে মিলে একটি কোম্পানি খোলেন। কিন্তু সেখানে লক্ষ লক্ষ টাকা ক্ষতি হয়। এরপরই জেড আবার পর্ন ছবিতে ফিরে আসেন। দু’জনেই এই কাজ করতে শুরু করেন। এতে তাদের পরিবার চলে বলেও জানিয়েছেন নেভি অফিসারের স্ত্রী। তিনি অন্য কাজ করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু পর্ন ছবিতে তার পরিচিতির জন্য অন্য কাজ পেতে অসুবিধা হয়।






মন্তব্য চালু নেই