মেইন ম্যেনু

দুঃখের সিনেমা দেখলে ওজন বাড়ে!

আপনি কি দুঃখের সিনেমা দেখতে পছন্দ করেন? তাহলে আজই আপনার ওজন মেপে দেখুন। কারণ দুঃখের বা কষ্টের সিনেমা আপনার ওজন কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয়! একদমই বানিয়ে বলছি না। গবেষণা করেই এই বিষয়টি জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

ল্যাবরেটরিতে দর্শকদের বসিয়ে রেখে তাঁদের পছন্দ অনুযায়ী ছবি দেখতে দেওয়া হয় এবং তাঁদের চাহিদা অনুযায়ী পপকর্ন সরবরাহ করা হয়। ছবি শেষ হওয়ার পর তাঁদের ব্যবহৃত পপকর্নের বক্সগুলো গুনে দেখা হয় সিনেমা দেখার সময় কারা বেশি পপকর্ন খেয়েছেন!

গবেষণায় দেখা গেছে, যাঁরা সিনেমা হলে দুঃখের সিনেমা দেখতে যান, তাঁরা অনেক বেশি পপকর্ন খান। আর পুরো সিনেমা শেষ হওয়া পর্যন্ত তাঁরা বিভিন্ন সময়ে বসার ভঙ্গি পরিবর্তন করেন। জামা ইন্টারন্যাশনাল মেডিসিন রিসার্চ লেটার জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে গবেষণাটি।

গবেষণাটির সূত্র ধরে ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির অনলাইন সংস্করণে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। মজার ব্যাপার হলো, যাঁরা দুঃখের ছবি দেখেন হলে বসে, তাঁরা অন্তত ২৮% বেশি পপকর্ন খান। যেখানে কমেডি সিনেমা দেখার সময় পপকর্ন খাওয়ার পরিমাণ খুবই কম থাকে। গবেষকরা বলেন, থিয়েটার বা সিনেমা হলে যাঁরা কোনো কষ্টের সিনেমা দেখতে যান, তাঁদের মধ্যে অন্তত ৫৫% মানুষ পপকর্ন কেনেন। যেখানে অন্য সিনেমার দর্শকের পপকর্নের প্রতি আকর্ষণ অনেক কম থাকে।

গবেষকরা মনে করেন, এই অভ্যাসের একটি ভালো দিকও রয়েছে। দুঃখের সিনেমা দেখার সময় আপনি চাইলে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার পরিমাণ বাড়িয়ে দিতে পারেন।

‘যদি দুঃখের সিনেমা দেখার সময় আপনার সামনে পুষ্টিকর খাবার বেশি করে রাখেন তাহলে ওজন বাড়ার তুলনায় আপনি সুস্বাস্থ্যের অধিকারীও হতে পারেন। আপনি চাইলে বেশি পরিমাণে ফল এবং শাক-সবজিও খেতে পারেন, যদি এগুলো সিনেমা দেখার সময় আপনার পাশেই থাকে’- এমনটাই পরামর্শ দিয়েছেন নিইউয়র্কের কর্নেল ইউনিভার্সিটির ফুড অ্যান্ড ব্র্যান্ড ল্যাবের প্রধান গবেষক ব্রায়ান ওয়ানসিংক।

গবেষকরা বলছেন, যাঁরা অ্যাকশন বা থ্রিলার ছবি দেখতে বেশি পছন্দ করেন, তাঁরা অনেক বেশি ক্যালরিযুক্ত খাবার খান; যদি সিনেমা দেখার সময় ক্যালরিযুক্ত খাবারগুলো হাতের নাগালেই থাকে।

কর্নেল ইউনিভার্সিটির রিসার্চার অ্যান্ড স্টাডির সহ-গবেষক আনের তাল বলেন, ‘যখন কেউ অ্যাকশন সিনেমা দেখেন, তখন সিনেমার গতি অনুযায়ী তিনি খাবার খান। সিনেমার আবগের সঙ্গে খাওয়ার একটা গভীর সম্পর্ক রয়েছে। হয়তো দর্শকরা খেয়েই কষ্টের জায়গাগুলোতে ক্ষতিপূরণ করে থাকে।’

গবেষকদের পরামর্শ হচ্ছে, ফ্যাটযুক্ত খাবারগুলো যদি হাতের নাগালের বাইরে রাখেন আর পুষ্টিকর খাবারগুলো সিনেমা দেখার সময় হাতের কাছেই রাখেন তাহলে আপনি নিজের ইচ্ছায় খুব সহজেই স্বাস্থ্যবান এবং হালকা-পাতলা শরীরের থাকতে পারবেন।






মন্তব্য চালু নেই