মেইন ম্যেনু

দুই বিয়ে না করলে কারাদণ্ড, ফাস হলো সেই গুজব!

যারা দুই বিয়ে করতে চান কিন্তু আইনের বেড়াজালে কিংবা পারিবারিক অথবা সামাজিক কারণে তা করতে পারছেন না, তাদের মনে খবরটি হয়তো ঈর্ষারই জন্ম দেবে। আফ্রিকার দেশ ইরিত্রিয়ায় অন্তত দুটো বিয়ে না করলে কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে সরকার। এ নির্দেশ দেশের সব পুরুষের জন্যই প্রযোজ্য।

তবে বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে ইরিত্রিয়া সরকারের পক্ষ থেকে এ সংবাদকে পুরোপুরি ভিত্তিহীন বলে দাবি করা হয়েছে।

কেনিয়ার সংবাদমাধ্যম ক্রেজি মনডে আরবিতে লেখা ইরিত্রিয়ার গ্রান্ড মুফতির ফতোয়ার বরাত দিয়ে জানিয়েছে, কোনো পুরুষ দুই বিয়ে না করলে তাকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। এমনকি কোনো স্ত্রী যদি তার স্বামীকে দ্বিতীয় বিয়ে করতে বাধা দেন, শাস্তি হবে তারও। মূলত পুরুষের বহুগামিতা বন্ধেই সরকারের পক্ষ থেকে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ফতোয়ায় লেখা আছে, ‘বহুগামিতা নিয়ে ঈশ্বরের আইন মেনে এবং দেশে পুরুষ কমে যাওয়ার পরিস্থিতি বিবেচনা করে, ইরিত্রিয়া সরকারের ধর্ম সংক্রান্ত দফতর এই সিদ্ধান্তগুলো নিয়েছে- প্রথমত, প্রত্যেক পুরুষ অন্তত দু’জন মহিলাকে বিয়ে করবেন এবং যে পুরুষ তা করতে অস্বীকার করবেন, তাকে যাবজ্জীবন কারাবাস করতে হবে। যে মহিলা তার স্বামীকে আবার বিয়ে করতে বাধা দেবেন, তাকেও যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হবে।’

এদিকে এই খবর প্রকাশিত হওয়ার পর ইরিত্রিয়ার নাগরিকত্ব পেতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে অনেকেই। নাইজেরিয়া থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার বহু পুরুষ টুইটারে জানিয়েছে ‘ইরিত্রিয়া যেতে চাই, সে দেশের নাগরিকত্বও চাই, নিদেন পক্ষে ভিসাটা জলদি পেলেও চলবে।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়ছিল সে দেশে ভিসার আবেদনের একের পর এক লিঙ্ক। তবে এসব পুরুষের আশায় সরাসরি জল ঢালে খোদ ইরিত্রিয়া সরকার। সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, বহু বিবাহের এ খবর সম্পূর্ণ মিথ্যে, নিছক গুজব ।

সোমবার খবরটি প্রথম প্রকাশিত হয় ‘ক্রেজি মনডে’-তে। এই ওয়েবসাইটটি ‘স্ক্যান্ডাল’ এবং ‘গসিপ’ সংক্রান্ত খবর প্রকাশের জন্যই ‘বিখ্যাত’। ‘ক্রেজি মনডে’-র সূত্র ধরে একের পর ওয়েবসাইটে ছড়িয়ে পরে এই খবর। আর তাতেই বেজায় চটেছে ইরিত্রিয়া সরকার।

তথ্যমন্ত্রী ইয়েমানি গেব্রিমেস্কেল টুইট করে জানিয়েছেন ‘যেভাবে কিছু মিডিয়া এই চরম মিথ্যে ছড়িয়েছে তা রীতিমতো আতঙ্কের। মনে হচ্ছে কোনো অশুভ শক্তি এ সব ছড়িয়ে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ইরিত্রিয়ার বদনাম করতে চাইছে। আসমারার (ইরিত্রিয়ার রাজধানী) রাস্তার এক পাগলও জানে এই খবর সম্পূর্ণ মিথ্যা।’






মন্তব্য চালু নেই