মেইন ম্যেনু

দুপুরের আগেই ১৬ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রথম দফার ভোটে সহিংসতা ও জালিয়াতির কারণে ১৬টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে।মঙ্গলবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পরপরই এসব কেন্দ্র বাতিল ঘোষণা করা হয়।

স্থগিত হওয়া কেন্দ্রগুলোর মধ্যে রয়েছে সাতক্ষীরা সদরের ৪টি কেন্দ্র, তালা উপজেলায় ৩টি, কলারোয়ায় ৩টি, শ্যামনগরে ৩টি, কালিগঞ্জে ২টি ও বরিশালে ১টি কেন্দ্র।

প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

সাতক্ষীরা: সহিংসতার কারণে সাতক্ষীরা সদরে চারটি কেন্দ্র স্থগিত করা হয়েছে। এছাড়া তালা উপজেলার কুমিরা ইউনিয়নের তিনটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরুর আগেই বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। এবং সংঘর্ষের কারণে কলারোয়ায় ৩টি কেন্দ্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহবুবুর রহমান জানান, নির্বাচনী সহিংসতার কারণে কুমিরা ইউনিয়নের তিনটি কেন্দ্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

কেন্দ্রগুলো হলো- ভাগবাহ, অভয়তলা ও কাদপুর। নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এসব কেন্দ্রে পরবর্তীতে ভোটগ্রহণ করা হবে বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার ভোরে তালা উপজেলার কুমিরা ইউনিয়নের ভাগবাহ ভোট কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে ভোট জালিয়াতির সময় পুলিশের গুলিতে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস ও তার ছোট ভাই রুহুল আমিন গুলিবিদ্ধ হন।

অন্যদিকে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার কৈখালী ইউনিয়নে ভোট জালিয়াতির অভিযোগে তিনটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোরে এসব কেন্দ্রে ঢুকে ভোট জালিয়াতি ও প্রিজাইডিং অফিসারকে মারধরের ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু সায়েদ মনজুর আলম জানান, কৈখালী ইউনিয়নের পূর্ব কৈখালী ও মাহজারিন স্কুল কেন্দ্রসহ তিনটি কেন্দ্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

বরিশাল: বরিশাল সদর উপজেলার রায়পাশা কড়াপুর ইউনিয়নের পপুলার মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ওই ইউনিয়নের পপুলার মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে কমপক্ষে ৫ জন আহত হয়।

এ ঘটনার পর ওই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত রেখেছেন প্রিজাইডিং অফিসার এস এম সামসুদ্দিন।






মন্তব্য চালু নেই