মেইন ম্যেনু

দু’বার জীবন পেয়েও তামিমের ফিফটি মিস

দুইবার জীবন পেয়েও নিজের ইনিংসটাকে বড় করতে পারলেন না তামিম ইকবাল। সেই সঙ্গে ভারতের বিপক্ষে হাফ সেঞ্চুরি করতে ব্যর্থ হলেন এই বাঁহাতি হার্ড হিটার ওপেনার। ম্যাচের প্রথম ওভারের পঞ্চম বলে ব্যাক্তিগত পাঁচ রানে ক্যাচ আউটের সুযোগ দেন তামিম ইকবাল। কিন্তু তার দেয়া রিটার্ন ক্যাচটি তালুবন্দি করতে ব্যর্থ হন আশিষ নেহরা। তারপর থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন তামিম।

ভীষণ সতর্কতার সঙ্গে ব্যাটিং করতে থাকেন বাংলাদেশি এই বাঁহাতি ওপেনার। তবে বারবার ভারতীয় ফিল্ডাররা তামিমকে রাগান্বিত করার চেষ্টা অব্যাহত রাখেন। কখনো বল তার শরীর বরাবর ছুড়ে বিব্রত করার চেষ্টা চালান। তবুও ধীর-স্থির ছিলেন তামিম। কারণ বাংলাদেশের জয়-পরাজয় এই বাঁহাতি ওপেনারের ওপর অনেকটা নির্ভর করছিল। কিন্তু দুই বারবার জীবন পেয়েও ভারতের বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে বড় ইনিংস গড়তে ব্যর্থ হলেন তামিম। শেষ পর্যন্ত ৩২ বলে ৩৫ রান করে রবিন্দ্র জাদেজার বলে স্ট্যাম্পিং হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

পাঁচ রানে জীবন পাওয়ার পর ব্যাক্তিগত ১২ রানে আবারো ক্যাচ আউটের সুযোগ দেন তামিম। ম্যাচের চতুর্থ ওভারের চতুর্থ বলে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলে সুইপ শট করেন তামিম। কিন্তু তামিমের নেয়া শটটি ঠিকমতো ব্যাটে না লেগে বলটি অনেক উঁচুতে উঠে যায়। পরে শর্ট স্কোয়ার লেগে দাঁড়ানো বুমরাহ আকাশে উঠা ক্যাচটি তালুবন্দি করতে পারলেন না। এই সুযোগ পেয়ে পরে ব্যাট হাতে চার-ছক্কা হাঁকাতে থাকেন তামিম। শেষ পর্যন্ত অতি আক্রমণাত্মক হতে গিয়ে ৩২ বলে ৩৫ রান করে আউট হয়ে যান বাংলাদেশি এই হার্ডহিটার ওপেনার। ডাউন দ্যা উইকেটে পেটাতে গিয়ে শিকার হন ধোনির স্ট্যাম্পিংয়ের ।






মন্তব্য চালু নেই