মেইন ম্যেনু

দুরন্ত সেই কিশোরকে সম্মান জানালো কান উৎসব

ফ্রান্স নিউ ওয়েব চলচ্চিত্রের হাতেখড়ি যার হাতে তিনি ফ্রাঁসোয়া ত্রুফো। বিশ্ব চলচ্চিত্রের এই মহান নির্মাতার হাত ধরেই তুমুল আলোচনায় চলে আসেন ফ্রান্সের দুরন্ত এক কিশোর। তার সবচে প্রভাবশালী চলচ্চিত্র ‘দ্য ৪০০ ব্লোজ’-এর মাধ্যমে গোটা দুনিয়ার চলচ্চিত্র শিল্পে বিশেষ স্থান করে নেন এক দুরন্ত কিশোর জ্যাঁ পিয়েরে ল্যাড।

ফ্রাঁসোয়া ত্রুফোর সেই বিখ্যাত ছবিতে দুরন্ত কিশোরটির নাম ছিল এন্টনিও ডোনিয়েল। ১২ বছরের ফরাসি এক বালক। পঞ্চাশের দশকের শুরুতে যে ফ্রান্সে বড় হচ্ছিল তার সৎবাবার কাছে। সে ছিল দুর্দান্ত রকমের দস্যি। স্কুল আর বাসা দু জায়গাতেই সে চরম অবহেলার শিকার। ডানপিঠে এই শৈশবই কাল হয় তার। প্রতিদিন স্কুল পালিয়ে সিনেমা দেখা, ঘরের জিনিস চুরে করে বিক্রি করা ছিল তার নিয়মিত রুটিন। এমন উচ্ছলতার কাল হয়ে দাঁড়ায় একদিনের এক চুরির ঘটনা। একদা ডোনিয়েল তার সৎ-বাবার একটা টাইপরাইটার চুরি করে বিক্রি করতে গিয়ে ধরা পরে। তারপর তার সৎবাবা তাকে জেলে দেয়। জেলে তাকে পতিতা হতে শুরু করে সমাজের সকল শ্রেণীর অপরাধীদের সাথে থাকতে হত। ডোনিয়েল যেহেতু স্কুল এবং তার বাড়ী উভয় যায়গা থেকেই পালাতে ওস্তাদ ছিল তাই সর্বদাই জেলখানা থেকেও মুক্তি চাইত তার সরল স্বাধীনচেতা মন। এমন এক দুর্দান্ত গল্পে সেসময় কিশোর ছেলেটি সবার নজরে চলে আসে। সিনেমাটি ছিল ১৯৫৯ সালের! সেসময় ছোট্ট ডোনিয়েলের বয়স ছিল মাত্র চৌদ্দ!

এরপর কেটে গেছে বহুকাল। কিশোর চরিত্রে অভিনয় করা সেই চৌদ্দ বছরের দুরন্ত কিশোর জ্যাঁ পিয়েরের বয়স এখন সত্তুর! মাঝখানে অসংখ্য সিনেমায় অভিনয় করে কুড়িয়েছেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি ও সম্মাননা। কিন্তু নিজের ঘরে(কান চলচ্চিত্র উৎসব) এত বড় উৎসবে এমন সম্মাননা আগে কখনোই পাননি জ্যাঁ পিয়েরে। কিন্তু ২২ মে শেষ হওয়া কান চলচ্চিত্র উৎসবের ৬৯তম আসরের শেষ দিনে জামজমকপূর্ণরূপে সম্মাননা জানানো হল সেই দুর্দান্ত কিশোর কে! যে স্কুল পালিয়ে প্রতিদিন চলে যেত সিনেমা দেখতে!

এগনেস ভারদাকে গত বছরে সম্মান জানিয়েছিল কান কর্তৃপক্ষ। এইদিক বিবেচনায় বিখ্যাত অভিনেতা ক্লিন্ট ইস্টউড, ম্যানুয়েল ড্য অলিভিরা, উডি অ্যালেন এবং ভারনারদো বারতোলুচ্চিকে সাম্প্রতিক সময়ে সম্মাননা জানানোর পাশাপাশি এবার ফ্রান্স অভিনেতা ও ফ্রাঁসোয়া ত্রুফোর ‘দ্য ৪০০ ব্লোজ’-এর সেই দুরন্ত কিশোর জ্যাঁ পিয়েরে ল্যাডকে দেয়া হল সেই সম্মাননা।

প্রসঙ্গত, টানা বারো দিন ধরে ফ্রান্সের দক্ষিণের শহর কানে চলছিল বিশ্বের গৌরবময় আন্তর্জাতিক কান চলচ্চিত্র উ্তসবের ৬৯তম আসর। সিনেমা বোদ্ধা আর সমালোচকদের সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ২২ মে মধ্যরাতে অবশেষে কান উৎসবের সবচেয়ে আকর্ষিত পুরস্কার ‘স্বর্ণ পাম’ ঘোষণার মধ্য দিয়ে শেষ হল জৌলুসময় এই চলচ্চিত্র উত্সব। আর এই উত্সবে স্বর্ণ পাম জিতেছে ব্রিটিশ চলচ্চিত্র ‘মুই, ডেনিয়েল ব্ল্যাক’। এটা ব্রিটিশ প্রখ্যাত নির্মাতা কেন লোচের দ্বিতীয় স্বর্ণ পাম জয়। এছাড়া ক্যামেরা ডি’অর, সেরা নির্মাতা, সেরা অভিনেতা, সেরা চিত্রনাট্য এবং সেরা অভিনেত্রী ক্যাটাগরিতে পুরস্কার দেয়া হয়।






মন্তব্য চালু নেই