মেইন ম্যেনু

দু-এক দিনের মধ্যে পতাকা বৈঠক

বিজিবির নায়েক আবদুর রাজ্জাককে ফিরিয়ে আনতে দু-এক দিনের মধ্যেই দুই দেশের মধ্যে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেই লক্ষ্যে বিজিবির ছয় সদস্যের প্রতিনিধিদল একজন লেফটেন্যান্ট কর্নেলের নেতৃত্বে মিয়ানমারের লংডুতে যাবে। তবে বুধবার যে প্রতিনিধিদলের মিয়ানমার যাওয়ার কথা ছিল, সেটি বাতিল হয়েছে।

বুধবার দুপুরে পিলখানায় বিজিবির সদর দফতরে মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

বিজিবির মহাপরিচালক বলেন, ‘মিয়ানমারের লংডুতে ওই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির একজন লে. কর্নেল এবং বিজিবির লে. কর্নেল আবু জার আল জাহিদের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের প্রতিনিধিদলের একটি পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেই বৈঠকের মাধ্যমে নায়েক আবদুর রাজ্জাককে ফিরিয়ে আনা হবে। বৈঠকটি  বৃহস্পতিবার হওয়ার কথা রয়েছে। তবে কোনোভাবে মিস হলে পরেরদিন এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘গত সোমবার মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতের বৈঠক শেষে পতাকা বৈঠকের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। ওই মিটিংয়ে ফেসবুকে রাজ্জাকের ছবি প্রকাশ প্রসঙ্গে বলা হয়েছে। সেখানে এ ব্যাপারে তীব্র আপত্তি তোলা হয়েছে। একজন ডিফেন্স সদস্যকে কী করে হাতকড়া পরিয়ে ছবি তুলে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়! নায়েক রাজ্জাক যাতে রমজান মাসের রোজা ও নামাজ ঠিকভাবে পালন করতে পারেন, সে জন্য তাদের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া যেহেতু তিনি একজন মুসলমান, তাই তাকে যেন সেই সমস্ত খাবার-দাবার পরিবেশন করা হয়।’

সাংবাদিকদের আজিজ আহমেদ বলেন, ‘ঘটনার এক ঘণ্টার মধ্যে আমি খবর পাই। এরপর বিভিন্ন মাধ্যমে যোগাযোগ করেছি। সেই মাধ্যমগুলোর কেউই রাজ্জাককে ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যাপারে কোনো শর্তের কথা বলেনি। আমাদের দেশে চেইন অব কমান্ড রয়েছে এবং তা মেনে চলা হয়। কিন্তু মিয়ানমারের ক্ষেত্রে হয়তো সে রকম চেইন অব কমান্ড মেনে চলা হয় না। তাই তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে দেরি হচ্ছে।’

এর আগে মঙ্গলবার রাজ্জাককে ফিরিয়ে দিতে মিয়ানমার নতুন করে শর্ত জুড়ে দেয়। তাদের কাছে উদ্ধার হওয়া ৫৫৫ জন বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে নিলে তবেই রাজ্জাককে ফেরত দেওয়া হবে- এমন শর্ত দেয়। জবাবে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘নতুন শর্ত জুড়ে দিয়ে মিয়ানমার অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি করছে। উদ্ধার হওয়া ৫৫৫ জন কাগজপত্রে বাংলাদেশি দেখাতে পারলে ফেরত নেওয়া হবে। এটি সময়ের ব্যাপার। এ ছাড়া বিষয়টি দেখভাল করবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। আর বিজিবির নায়েক রাজ্জাককে ফিরিয়ে আনার বিষয়টি নির্ভর করছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওপর।’

প্রসঙ্গত, গত ১৭ জুন ভোরে টেকনাফের নাফ নদীর জাদিমুরা পয়েন্ট সীমান্তে বিজিবি সদস্যরা ইঞ্জিনচালিত নৌকায় করে টহল দেওয়ার সময় একটি ট্রলার থামিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছিলেন। এ সময় পূর্ব দিক থেকে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপি তাদেরকে ইয়াবা পাচারকারী বা চোরাচালানকারী ভেবে গুলিবর্ষণ করে। বিজিবি সদস্যরাও পাল্টা গুলিবর্ষণ করে। এতে বিজিবি সদস্য সিপাহি বিপ্লব গুলিবিদ্ধ হন এবং নায়েক আবদুর রাজ্জাককে বিজিপি সদস্যরা ধরে নিয়ে যায়। গুলিবিদ্ধ বিজিবি সদস্য বিপ্লবকে প্রথমে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই