মেইন ম্যেনু

দেবহাটার বিভিন্ন জলাবদ্ধ এলাকা ও ক্ষতিগ্রস্থ ভেড়ীবাধ ইউএনওর পরিদর্শন

গত কয়েকদিনের অবিরাম বর্ষনে দেবহাটা উপজেলার বিভিন্ন জলাবদ্ধ এলাকাগুলো ও ইছামতি নদীর ক্ষতিগ্রস্থ ভেড়ীবাধ রবিবার সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তহমিনা খাতুন। তিনি রবিবার সকাল ১০ টার দিকে এবং শনিবার সকালে উক্ত এলাকা আশ্রয় কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করেন।

এসময় তিনি ভেড়ীবাধ মেরামতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন সহ আশ্রয় কেন্দ্রের আশ্রিত মানুষদের প্রয়োজনমত সবধরনের সহযোগীতার আশ্বাস প্রদান করেন। গত কয়েকদিনের অবিরাম বর্ষনে সাধারন মানুষ ঘর থেকে যেমন বের হতে পারছেনা, তেমনি সাধারন জীবনযাত্রা অচল হয়ে পড়েছে। অপরদিকে অবিরাম বর্ষনে উপজেলার অধিকাংশ মৎস্য ঘের ও নিম্নঞ্চল ডুবে গেছে। অনেক কাচা ঘরবাড়ি ভেঙ্গে পড়েছে।

আবার অন্যদিকে অতি বর্ষনে দেবহাটার ইছামতি নদীর ভেড়ীবাধের কয়েকটি জায়গা ঝুকিপূর্ন হয়ে পড়েছে। রবিবার উপজেলার ইছামতি নদীর ভাতশালা এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ ভেড়ীবাধ সরেজমিনে দেখার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তহমিনা খাতুন সেখানে উপস্থিত হন।

তিনি এসময় স্থানীয়েেদর সাথে কথা বলে সার্বিক পরিস্থিতি দেখে তাৎক্ষনিক পাউবোর চীফ ইঞ্জিনিয়ারের সাথে কথা বলেন। পরে তিনি সখিপুর ইউনিয়নের পানি নিষ্কাষনের ড্রেন ও বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এর আগে শনিবার তিনি উপজেলার বাবুরাবাদ ঢেপুখালী সাইক্লোন সেন্টার, চালতেতলা সাইক্লোন সেন্টার, বড়শান্তা, নাজিরের ঘের সহ বিভিন্ন এলাকার বস্যার্ত খোজখবর নেন এবং প্রয়োজনীয় সহযোগীতার আশ্বাস প্রদান করেন।

ইউএনও তহমিনা খাতুন জানান, তিনি বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেছেন এবং মানুষের প্রয়োজনমত সরকার সহযোগীতা করবে বলে জানিয়েছেন। তিনি উপজেলার নওয়াপাড়া এলাকার খাল ও শাখরা খালটি ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে দ্রত পানি নিষ্কাষনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন। তবে দেবহাটা উপজেলায় আল্লাহর অশেষ রহমতে বড় কোন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে তিনি জানান।

ভেড়ীবাধের বিষয়ে তিনি এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক ও পাউবোর ইঞ্জিনিয়ার সাহেবকে চিঠি দিয়েছেন এবং চীফ ইঞ্জিনিয়ার দ্রুত নিজে এসে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন বলে তাকে জানিয়েছেন বলে তিনি নিশ্চিত করেন।

এছাড়া গত কয়েকদিনের অবিরাম বর্ষনে উপজেলার প্রায় ৪ হাজার হেক্টর জমির মৎস্য ঘের তলিয়ে গেছে। তবে ক্ষতির পরিমান এখনো নির্দিষ্টভাবে যায়নি। যদি বর্ষা না থামে তাহলে ক্ষতির পরিমান আরো বাড়বে বলে সচেতনমহলের ধারনা।






মন্তব্য চালু নেই