মেইন ম্যেনু

দেশে ফিরিয়ে আনা হয়েছে দিতিকে

জনপ্রিয় অভিনেত্রী পারভীন সুলতানা দিতিকে ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হয়েছে। তিনি দীর্ঘদিন ভারতের চেন্নাইয়ের মাদ্রাজ ইনস্টিটিউট অব অর্থোপেডিকস অ্যান্ড ট্রমাটোলজি (এমআইওটি) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

শুক্রবার বিকেল ৪টার দিকে প্রায় তিন মাস পর ছেলে শাফায়াত ও মেয়ে লামিয়াসহ ঢাকায় ফেরেন তিনি। ঢাকায় ফেরার পর তাকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সম্প্রতি দিতির মেয়ে লামিয়ে জানিয়েছিলেন, তার মায়ের অবস্থার পরিবর্তন আর চিকিৎসকদের দ্বারা সম্ভব নয়। এখন পুরোটাই নির্ভর করছে ওপরওয়ালার ওপর। তাই শিগগিরই ঢাকায় ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারা।

এর আগে, দিতির শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় গত ৪ জানুয়ারি তার মেয়ে লামিয়া চৌধুরী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাসে লিখেন, ‘মা মারা যাচ্ছে। আমাকে তার বিষয়ে প্রশ্ন করা বন্ধ করুন। উনি ভালো হয়ে যাবেন- এ ধরনের সান্ত্বনা দেওয়াও বন্ধ করুন। চিকিৎসকদের হাতে আর কিছু করার নেই। কেমোথেরাপির রেডিয়েশনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় তার ‘পারকিনশন’ রোগ হয়েছে। তার ক্যান্সার তাকে মারছে না। টিউমারও হয়নি। রেডিয়েশনের ফলেই তার অবস্থার অবনতি হয়েছে।’

আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করে দিতিকন্যা বলেন, ‘আল্লাহ যদি সহায় হন তাহলে তাকে এই যন্ত্রণা থেকে মুক্ত করবেন অতি দ্রুত। আল্লাহ আমার মাকে মৃত্যু উপহার দাও। তিনি আমাদের চিনতে পারছেন না কিন্তু তোমার প্রতি তার বিশ্বাস অবিচল। তিনি আমাদের ডাকতে পারছেন না কিন্তু তোমাকে তিনি মনে করছেন। নিশ্চয়ই আল্লাহ সঠিক কাজটাই করেন।’

গত বছরের ২৯ জুলাই প্রথমবারের মতো দিতির মাথায় সফল অস্ত্রোপচার করা হয়। মাঝখানে কিছুদিন সুস্থ থাকলেও ইনফেকশনের জন্য আবারো হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন আশির দশকের এই নায়িকা। তারপর দ্বিতীয় দফায় তাকে নভেম্বর মাসে চেন্নাই নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আবারও মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করা হয়।

এদিকে দিতির শারীরিক অবস্থার এমন নাজুক পরিস্থিতির খবরে বেদনার ছায়া পড়েছে চলচ্চিত্রাঙ্গনসহ শিল্পের নানা ভুবনে। সবাই দিতির আরোগ্য কামনা করেছেন। তারা বর্তমানে দিতিকে দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন।






মন্তব্য চালু নেই