মেইন ম্যেনু

দেড় মণ ইলিশ খাওয়ালেন আশুগঞ্জের ইউএনও

বাংলা বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে দেড় মণ ইলিশ দিয়ে ভুড়িভোজন করিয়ে বিতর্কে জড়ালেন আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সন্দ্বীপ কুমার সিংহ।

বৃহস্পতিবার সকালে বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে আশুগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজনে উপজেলা পরিষদ হলরুমে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে এই ইলিশ খাওয়ানো হয়। দেড় মণ ইলিশ খাওয়ায় এলাকায় চলছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

ইলিশের প্রজনন সময় হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নববর্ষে তার খাবার ম্যানুতে ইলিশ রাখেননি। তাই তার সম্মানে সারাদেশে প্রশাসনসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পরিবারের লোকজন ইলিশ খাওয়া বন্ধ রাখলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকাশ্যে ২শতাধিক লোকজনকে ভূড়িভোজ করিয়েছেন। এতে ছিল চাঁদপুর থেকে আনা দেড় মণ ইলিশ ও প্রায় ১০ রকমের ভর্তা ও ভাজি। তাই এ ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রক্রিয়ার সৃষ্ঠি হয়েছে।

আশুগঞ্জ উপজেলার বর্ষবরণের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ফেরদৌসি আক্তার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রেহানা মকবুল, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো নাছির আহমেদ প্রমুখ। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন সরকারি কর্মকর্তা ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন। তবে অনুষ্ঠানে উপজেলা আওয়ামী লীগের জেষ্ঠ্য কোনো নেতাকে দেখা যায়নি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সন্দ্বীপ কুমার সিংহ জানিয়েছেন, আসলে আমাদের মাছগুলো আগে থেকে কেনা তাই আমরা খাওয়াতে হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন ভর্তা ভাজিও ছিল।

জেলা নাগরিক ফোরামের সভাপতি পীযূষ কান্তি আচার্য জানান, ইলিশ মাছ সরকারিভাবে খাওয়া দেশে নিষিদ্ধ করা হয়নি। কিন্তু যেহেতু এখন ইলিশের প্রজননকালীন সময়। সেই সময়ে ইলিশ খাওয়াটা যুক্তিসঙ্গত নয়। এমনকি প্রধানমন্ত্রী নিজেও পহেলা বৈশাখে ইলিশ না খাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এছাড়া পান্তা ইলিশ আমাদের বাঙালি সংস্কৃতির কোনো অংশ নয়। সুতরাং যদি আশুগঞ্জের ইউএনও সাহেব ইলিশ খেয়ে বর্ষবরণ করে থাকেন তা নিন্দনীয়। আমি এ ঘটনার নিন্দা জানাই।’






মন্তব্য চালু নেই