মেইন ম্যেনু

দ্বিতীয়বারের চেষ্টায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর!

দীর্ঘ সাত বছর অপেক্ষার পর অবশেষে হত্যা এবং যৌন নির্যাতনে দোষী প্রমাণিত এক ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রথম দফায় শিরা খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়ে দ্বিতীয়বার চেষ্টায় মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করেছে অভিযুক্ত ব্যক্তির।

কারা কর্তৃপক্ষ জানায়, সাত বছর ধরে ঝুলে থাকা বন্দি রোমেল ব্রোরুমের মৃত্যুদণ্ড অবশেষে কার্যকর করা হয়েছে। যদিও দ্বিতীয় বারের মতো কাউকে ‘ডেথ চেম্বারে’ নিয়ে যাওয়া সত্যিই কষ্টের।

জানা যায়, ২০০৯ সালে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর কমিটি টানা দুঘণ্টা চেষ্টা চালিয়েও ব্রোরুমের শরীরে ইঞ্জেকশন দিতে পারেনি। কারণ উপযুক্ত শিরার অভাব। সেই সময়ে ওহিও রাজ্যের গর্ভনর টেড স্ট্রিকল্যান্ড ব্রোরুমের মৃত্যুণ্ডাদেশ স্থগিত করে।

এরপর ব্রোরুমের ক্ষেত্রে ‘জুয়োপ্যারোডি’ আইন প্রযোজ্য হবে কিনা সেই নিয়েও চলে বিতর্ক। অবশেষে গত বুধবার ওহিও রাজ্যের উচ্চ আদালত জানায়, ব্রোরুমের ক্ষেত্রে জুয়োপ্যারোডি আইন প্রযোজ্য হবে না। কারণ ২০০৯ সালে তার শরীরে ইঞ্জেকশন দেয়া সম্ভব হয়নি। কারণ তখন কমিটি উপযুক্ত শিরা খুঁজে পায়নি।

১৯৮৪ সালে ফুটবল খেলা দেখে ফেরার সময় ১৪ বছর বয়সী এক কিশোরীকে ধর্ষণ এবং হত্যা করে ব্রোরুম। যদিও ২০০৯ সালে কেনো তার শরীরে শিরা খুঁজে পাওয়া যায়নি এ নিয়ে বিতর্ক রয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই