মেইন ম্যেনু

দ্বৈত ভোটার হওয়ার চেষ্টা করলেই শাস্তি

কেউ দ্বৈত ভোটার হওয়ার চেষ্টা করলেই তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম।

সোমবার বিকেলে নির্বাচন কমিশনের নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘এর আগে দ্বৈত ভোটার হওয়ার ক্ষেত্রে আমরা ব্যবস্থা নেইনি। কারণ মানুষ এ বিষয়ে তেমন জানতো না। এখন মানুষ এ বিষয়ে জানে। ফলে আমরা কঠোর হচ্ছি। এখন থেকে কেউ যদি দ্বৈত ভোটার হওয়ার চেষ্টা করে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘দ্বৈত ভোটার হওয়ার বিধান আইনেও নেই, বাস্তবেও নেই। কেউ দ্বৈত ভোটার হওয়ার চেষ্টা করে কমিশনকে হয়রানি করতে পারবে। কিন্তু কিছুতেই দ্বৈত ভোটার হতে পারবে না। কারণ, যখন তার হাতের আঙুলের ছাপ মেলানো হবে তখনই সে ধরা পড়ে যাবে। কাজেই দ্বৈত ভোটার হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।’

সচিব বলেন, ‘কেউ ঠিকানা পরিবর্তন করতে চাইলে এর জন্য আমাদের নির্ধারিত ফরম আছে। সেটা পূরণ করে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে জমা দিলে তিনি এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবেন।’

ভোটার তালিকা হালনাগাদ সম্পর্কে সচিব বলেন, ‘গত ২৫ জুলাই থেকে তিন ধাপে ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজ শুরু হয়েছে। প্রথম ধাপে ১৮৯ উপজেলা, দ্বিতীয় ধাপে ১৮৭ উপজেলা এবং তৃতীয় ধাপে আজ থেকে ঢাকা মহানগরীর ১৫ থানা এবং চট্রগাম মহানগরসহ ১৩৮ উপজেলায় বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। এ তথ্য সংগ্রহের কাজ চলবে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।’

ঢাকাবাসীদের তথ্য সংগ্রহকারীদের তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করার জন্য অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘অনেক সময় দেখা যায় তথ্য সংগ্রহকারীরা কারো বাসায় নক করলেও ভেতর থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায় না। এমনও হয়, অনেকে বলেন আজ না, আরেকদিন আসেন। আমি তাদের বলবো, যখন তথ্য সংগ্রহকারী আপনার বাসায় যাবে, তখনই আপনি আপনার তথ্য দিয়ে দেবেন। এর পর আবার আপনার বাসায় যাওয়ার মতো সময় তথ্য সংগ্রহকারীর নাও থাকতে পারে।’






মন্তব্য চালু নেই