মেইন ম্যেনু

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, ব-দ্বীপ প্রকাশনী বন্ধ

ইসলাম ধর্মের অনুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগে অমর একুশে গ্রন্থমেলার ব-দ্বীপ প্রকাশনীর স্টলটি বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। একইসাথে তারা ওই প্রকাশনীর বেশ কয়েকটি বই জব্দ করেছে।

সোমবার বিকেলে ব-দ্বীপ প্রকাশনীর স্টলে পুলিশ অভিযান চালায়। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, বিশেষ করে ফেসবুক থেকে পুলিশ জানতে পারে, ব-দ্বীপ থেকে প্রকাশিত প্রবন্ধ সংকলন ‘ইসলাম বিতর্ক’ বইটিতে ইসলাম ধর্মের অনুভূতিতে আঘাত হানার মতো লেখা আছে। বইটি সম্পাদনা করেছেন শামসুজ্জোহা মানিক। এ সময় স্টলে থাকা ‘ইসলাম বিতর্ক’ বইটির ৬ কপি পুলিশ জব্দ করে।

এছাড়া ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার মতো লেখা আছে কি না তা অনুসন্ধান করতে একই প্রকাশনী থেকে আরও পাঁচটি বই জব্দ করেছে পুলিশ। বইগুলো হলো- শামসুজ্জোহা মানিক ও শামসুল আলম চঞ্চল রচিত ‘আর্যজন ও সিন্ধু সভ্যতা’, এম এ খান অনূদিত ‘জিহাদ : জবরদস্তিমূলক ধর্মান্তরকরণ, সাম্রাজ্যবাদ ও দাসত্বের উত্তরাধিকার’, শামসুজ্জোহা মানিকের ‘ইসলামের ভূমিকা ও সমাজ উন্নয়নের সমস্যা’, একই লেখকের প্রবন্ধ সংকলন ‘ইসলামে নারীর অবস্থা’ এবং ‘নারী ও ধর্ম’। ব-দ্বীপ প্রকাশনীর স্টলে প্রদর্শিত এ বইগুলোর সব কপি জব্দ করে পুলিশ।

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক সাংবাদিকদের বলেন, বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, বিশেষ করে ফেসবুক থেকে আমরা জানতে পারি, ব-দ্বীপ প্রকাশনীতে এমন বই প্রদর্শিত হচ্ছে যেগুলো ইসলাম ধর্মের অনুভূতি আঘাত করা হয়েছে। পরে অনুসন্ধানে বিতর্কিত লেখার প্রমাণ পাওয়া গেছে। ‘ইসলাম বিতর্ক’ বইটিতে মহানবী (স.) সম্পর্কে আপত্তিকর শব্দ পাওয়া গেছে। এ কারণে বইটি জব্দ করা হয়েছে এবং মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদের সঙ্গে কথা বলে স্টলটি বন্ধ করা হয়েছে।

আর পাঁচটি বই জব্দ প্রসঙ্গে আবু বকর সিদ্দিক বলেন, এ বইগুলোতেও বিতর্কিত লেখা আছে কি না তা অনুসন্ধান করার জন্যই সেগুলো জব্দ করা হয়েছে। আপত্তিকর কিছু পাওয়া গেলে পরে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে বইমেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ বলেন, ‘পুলিশ আমাদের বলেছে ব-দ্বীপ প্রকাশনীর স্টলে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে এমন বই প্রদর্শিত হচ্ছে। স্টলটি নিরাপত্তার জন্য হুমকিস্বরূপ। এ কারণে প্রকাশনীটির স্টল বন্ধ করা হয়েছে।’

যাচাই করা হয়েছিল কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘পুলিশ বলেছে তারা প্রমাণ পেয়েছে। বইগুলো যাচাই-বাছাই করে দেখা হবে সেগুলোতে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার মতো লেখা আছে কি না।’

স্টলে কর্তব্যরত বিক্রয়কর্মী কলি বলেন, ‘এসব বই মেলার প্রথম দিন থেকেই ছিল। অনেকে কিনেছেও। কিন্তু কোনোরকম বিতর্ক হয়নি। হঠাৎ পুলিশ আসল আর স্টলটি বন্ধ করে দিল।’ তবে মুঠোফোন বন্ধ থাকায় লেখক শামসুজ্জোহা মানিকের সঙ্গে কোনোপ্রকার যোগাযোগ করতে পারেননি বলে জানিয়েছেন কলি।






মন্তব্য চালু নেই