মেইন ম্যেনু

ধর্ষকের বয়স ৫ বছর!

এবার আর শিশু ধর্ষিত নয়, বরং ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক শিশুর বিরুদ্ধে। ব্রিটেনে পাঁচ বছর বয়সী এক শিশুর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছে। রবিবার ব্রিটেনের এই খবরে রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে বিশ্বব্যাপী। ব্রিটেন পুলিশের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানায়, গত এক বছরে সে দেশে ৭০টির বেশি ধর্ষণ ও শ্লীলতাহানির মামলায় দোষীদের বয়স ১০ বছরের নিচে। বছর পাঁচের ওই শিশু যৌন অত্যাচার চালিয়েছে এক কিশোরীর উপর।

ধর্ষণের অভিযোগের ভিত্তিতে তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করা হলেও, কোনও রকম আইনি পদক্ষেপ নিতে পারছে না পুলিশ। কারণ, ব্রিটেনে ১০ বছরের কম বয়সীদের আইনি শাস্তি দেওয়ার নিয়ম নেই। ধর্ষণের মতো অপরাধের প্রবণতা তৈরি হচ্ছে শিশুমনে। অভিযুক্তদের বয়স এমনই, যে সেই বয়সে যৌনচেতনাও গড়ে ওঠতে পারে না। ব্রিটেনের ন্যাশনাল সোসাইটি ফর প্রিভেনশন অব ক্রুয়েলটি টু চিলড্রেন (NPCC)-র পরিসংখ্যান বলছে, গত দুবছরে পাঁচ হাজার অপরাধের অভিযোগ জমা পড়েছে।

তার মধ্যে সবই ধর্ষণ, খুন, যৌন অত্যাচার। যে সব শিশুরা ধর্ষণ করছে, তারা নিজেরাও কোনও না কোনও সময় যৌন অত্যাচারের শিকার হয়েছে। এর আরেকটি কারণ স্মার্টফোন। কারণ, স্মার্টফোনে অনায়াসেই তারা পর্নগ্রাফি দেখতে পাচ্ছে। মা-বাবা জানতেও পারছেন না। শিশুমনে তার বিরূপ প্রভাব পড়ছে অচিরেই। ব্রিটেনে বেশির ভাগ স্কুলের শিশুদের মধ্যেই যৌন ইচ্ছে দ্রুত বাড়ছে। সেক্ষেত্রে বয়স কোন বিষয়ই নয়।






মন্তব্য চালু নেই