মেইন ম্যেনু

ধান্দাবাজদের পদ দেবেন না, খালেদাকে গয়েশ্বর

আসন্ন জাতীয় কাউন্সিলের ধান্দাবাজ, চাটুকার মোসাহেবদের দলীয় পদ না দিতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

আজ শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী কর্মজীবী দলের নবম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় গয়েশ্বর এই আহ্বান জানান।

দলের কাউন্সিল নিয়ে গয়েশ্বর বলেন, “দলে অনেকে আছেন যারা বড় বড় চেয়ার দখল করে আছেন। তারা আবার চেয়ার ছাড়তেও চান না। অনেকে চান ওই চেয়ার থেকে আরো উপরে উঠতে। কিন্তু নেতাকর্মীরা সবাই তাকিয়ে আছেন চেয়ারপারসনের দিকে। তারা আশা করছেন তিনি যোগ্যদের দায়িত্ব দেবেন। আর চাটুকার, মোসাহেবি এবং ধান্দাবাজদের পদ দেবেন না।”

রিজার্ভ থেকে টাকা হ্যাকের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকারি দলের লোক জড়িত বলে দাবি করে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, “সঠিকভাবে তদন্ত হলে এর প্রমাণ পাওয়া যাবে। যাদের হাতে ব্যাংকের চাবিকাঠি তারা ছাড়া এই টাকা লুট হওয়া সম্ভব নয়। আর সরকারি দলের কারো সঙ্গে যোগসাজশ ছাড়া থাকলে এতো টাকা উধাও করার বুকের পাঠা কারো নেই।”

সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে ৮০০ কোটি টাকা লুট প্রসঙ্গে গয়েশ্বর বলেন, “হ্যাক নয়, টাকা চুরি হয়েছে। প্রতিষ্ঠানের চাবিকাঠি যাদের হাতে তাদের ছাড়া এই টাকা লুট হতে পারে না। আর সরকারি দলের লোক জড়িত না থাকলে এতগুলো টাকা উথাও করার বুকের পাঠা কারো নেই। সঠিকভাবে তদন্ত না হলে প্রমাণ হবে তারা জড়িত।”

তিনি বলেন, “গণতন্ত্র অনেক আগেই হ্যাক হয়েছে আর এখন ব্যাংক হ্যাক হয়েছে।”

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে বোগাস ও রাবিশ আখ্যা দিয়ে গয়েশ্বর বলেন, “অর্থমন্ত্রী যেভাবে বলেন বোগাস আর রাবিশ আমিও নির্বাচনকে এইভাবে বলতে চাই। কারণ সারাদেশে মহড়া চলছে। কালকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের দিনে দেখবেন কতজন মনোনয়ন প্রত্যাহার করে আর কতজন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়।”

তিনি বলেন, “যারা বিনাভোটে এমপি হয় সেই দলের নেতাকর্মীরা বিনাভোটে চেয়ারম্যান হবেন এটাই স্বাভাবিক। এটাই তাদের কাছে গণতন্ত্র।”

একই অনুষ্ঠানে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান কাউন্সিল নিয়ে বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, আমরা চাই কাউন্সিলের মধ্য দিয়ে যারা বিভিন্ন সময় সংকটে সামনে ছিলেন তাদের নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হোক।”

নোমান বলেন, “আশা করি সুষ্ঠুভাবে কাউন্সিল সম্পন্ন হবে। এরমধ্য দিয়ে আমরা শক্তি অর্জন করবো এবং সংগঠিত হবো।”

সংগঠনের সভাপতি হাজী মো. লিটনের সভাপতিত্বে এতে আরও বক্তব্য দেন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই