মেইন ম্যেনু

ধূমপায়ীদের যে ৫টি খাবার খেতেই হবে

‘আমি জেনে-শুনে বিষ করেছি পান’-কবির এই কথার মতো অনেকে ধূমপানে মৃত্যু হয় জেনেও ছাড়তে পারেন না। শুরু করেছিলেন নিজে, কিন্তু শেষটা নিজের হাতে হয়ে উঠছে না। প্যাকেট প্যাকেট সিগারেট যাদের নৈমিত্তিক ব্যাপার। তাদের উচিৎ এমন কিছু খাবার খাদ্যতালিকায় যোগ করা, যা ম্যাজিকের মতো কাজ করবে। সিগারেটের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াকে বিনাশ করে শরীরকে অনেকটা সতেজ করে তুলবে। তবে হ্যা, এটা যদি করেন পাশাপাশি এও চেষ্টা করবেন, ধূমপানটা যেন চালিয়ে যেতে না হয়। ধীরে ধীরে সচেষ্ট হয়ে বদভ্যাসটাকে দূরই করুন।

জেনে নিন কী কী খেলে আপনার শরীরের উপকারে আসবে

আদা – অতিরিক্ত ধূমপান করার ফলে রোজ অনেক অনেক নিকোটিন জমছে শরীরে। সেগুলি রক্ত সঞ্চালনে সমস্যা তৈরি করছে। রক্তে নিকোটিনের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে আদা। প্রতিদিন নিয়ম করে আদা খাওয়া অভ্যেস করুন। ফুসফুস থেকে নিকোটিনের স্তর নির্মূল হবে। সিগারেট খাওয়ার ইচ্ছেও কমবে।

বেদানা – হৃদয়ের স্পন্দন বাড়ায় ধূমপান। ফলে রক্তচাপ বাড়ে ও রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা কমে। নিয়মিত বেদানা খেলে ব্লাড কাউন্ড বাড়ে। রক্তসঞ্চালনে সাহায্য করে।

গাজর – ধূমপান করলে শরীরে ভিটামিন এ ও ভিটামিন সি-এর মাত্রা কমে যায়। স্নায়ু, মস্তিষ্ক ও রক্ত সঞ্চালনে ক্ষতি করে। গাজর খেলে শরীরের কমতে থাকা ভিটামিন এ ও ভিটামিন সি সঠিক মাত্রায় কমে আসে।

বাদাম – ভিটামিন ই-তে ঠাসা বাদাম খান নিয়ম করে। অতিরিক্ত ধূমপান আমাদের শরীরে উপস্থিত রক্তনালীকে সঙ্কুচিত করে। বাদাম রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। ধূমপানের ফলে হৃদয়ের যে ক্ষতি হয়, তা থেকেও রক্ষা করে বাদাম।

পালং শাক – ধূমপান ঘুম নষ্ট করে। নিয়মিত পালন শাক খেলে সেই ঘাটতি মিটবে। পরিমিতি ঘুম হবে, দেখাবেও ফ্রেশ।

লেবু – সিগারেট খেলে ত্বকের ক্ষতি হয়। রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমতে থাকে। খাবারের সঙ্গে রাখুন যে কোনো লেবু, যেমন মোসাম্বি, কমলালেবু, পাতি লেবু। লেবুতে ভিটামিন সি থাকে, যা রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ত্বকেরও তেমন ক্ষতি হতে দেয় না।






মন্তব্য চালু নেই