মেইন ম্যেনু

নকলবাজ ধরতে ড্রোন!

চীনের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের (ন্যাশনাল কলেজ এনট্রান্স এক্সাম) ভর্তি পরীক্ষাকে বলা হয়ে থাকে বিশ্বের সবচেয়ে কঠিন ভর্তি পরীক্ষা। আর এই পরীক্ষায় নকলকারীদের ধরতে এবার ড্রোন ব্যবহারের পরিকল্পনা করেছে কর্তৃপক্ষ।

চীনের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের (ন্যাশনাল কলেজ এনট্রান্স এক্সাম) ভর্তি পরীক্ষাকে বলা হয়ে থাকে বিশ্বের সবচেয়ে কঠিন ভর্তি পরীক্ষা। আর এই পরীক্ষায় নকলকারীদের ধরতে এবার ড্রোন ব্যবহারের পরিকল্পনা করেছে কর্তৃপক্ষ।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ম্যাশএবল এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, দুই দিনব্যাপী ভর্তি পরীক্ষা চলার সময় নতুন এই ‘অ্যান্টি-চিটিং’ ড্রোনগুলো ব্যবহার করা হবে। পুরো চীন থেকে প্রায় ১ কোটি শিক্ষার্থী এই পরীক্ষায় অংশ নেয় বলে জানিয়েছে সাইটটি।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগের জন্য চীনে শিক্ষার্থীদের অনেকেই অভিনব কায়দায় নকলের চেষ্টা করেছেন। চশমার সঙ্গে লুকানো ক্যামেরা, কলমের সঙ্গে ইন-ইয়ার রিসিভার, রেডিও ট্রান্সমিটার, টি-শার্টের মধ্যে সেলফোন লুকিয়ে রাখাসহ নানা উদ্ভাবনী কায়দায় নকল চেষ্টার রেকর্ড আছে চীনা শিক্ষার্থীদের।

এই নকলবাজদের চিহ্নিত করতে তৈরি ড্রোনগুলো পরীক্ষার হলের ১,৬৪০ ফিট উপরে উড়ে আশপাশের ৩১০ মাইলের মধ্যে রেডিও তরঙ্গ পর্যবেক্ষণ করবে। পরীক্ষার নিয়ন্ত্রক ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা কর্মচারীরা ড্রোনগুলো নিয়ন্ত্রণ করবেন তাদের হাতে থাকা ট্যাবলেট থেকে।

নকল করতে গিয়ে একবার ধরা পরলে পরবর্তী তিন বছর পরীক্ষা দেওয়ার অনুমতি পাবেন না ওই শিক্ষার্থী। আরও আইনী ব্যবস্থাও নেওয়া হতে পারে ওই নকলকারীর বিরুদ্ধে।

চীনসহ এশিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলেই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় ইতিবাচক ফলাফলের জন্য চাপের মুখে পরতে হয় শিক্ষার্থীদের। ২০১৪ সালেই চীনে স্কুলের ভর্তি পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট ৭৯টি আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে ম্যাশএবল।






মন্তব্য চালু নেই