মেইন ম্যেনু

নকল কাগুজে শহর- অ্যাগ্লো

এমন একটা শহরের কথা বলুন তো যেটা কিনা বাস্তবে নেই? ভাবছেন এমন কোন শহর কেন থাকবে যেটার বাস্তবে নেই! কিন্তু না, এমন কিছু আক্ষরিক অর্থে কল্পনায় তৈরি শহর পৃথিবীতে সত্যিই রয়েছে। আর সেসব শহরকে মানুষ চেনে নকল শহর বা কাগুজে শহর হিসেবে। তবে আজকে পৃথিবীর সবগুলো কাগুজে শহর নয়, বলব সবার ভেতরে সেরা আর বিখ্যাত শহর অ্যাগ্লোর কথা।

কাগুজে শহর তৈরি করাটা মানচিত্র নির্মাতাদের জন্যে কঠিন বা নতুন কিছু নয়। শুধু কি শহর? সেই সাথে রাস্তা, পাহাড়, গ্রাম- আরো কতকিছু চোখের নিমিষে বানিয়ে ফেলে তারা! তবে তাদের এই মিথ্যেটুকু কিন্তু একেবারেই ফেলনা কিছু নয়। বরং এই অল্প একটু মিথ্যে খুব সহজেই কারো কষ্ট করে তৈরি করা মানচিত্রকে নকল করে মানচিত্র তৈরিকারী ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে ধরিয়ে দিতে পারে। কি বুঝলেন না তো? চলুন দেখে আসি উদাহরণ।

১৯৩০ সালে জেনারেল ড্রাফটিং কোং বা জিডিসির পরিচালক অট্টো ও তার সহকারী আর্নেস্ট পান একটি বেশ বড় আর কঠিন কাজ । আর কাজটি হচ্ছে নিউ ইয়র্ক স্টেট ম্যাপ তৈরি করা। খুব খেটেখুটে নিজেদের কাজ শেষ করেন এই দুজন মানুষ। কিন্তু এত কষ্টের কাজ কেউ যদি চুরি করে নিয়ে নিজের নামে চালিয়ে দেয়? এই ভয়ে নিজেদের মানচিত্রে অ্যাগ্লো নামক একটি কাল্পনিক শহর তৈরি করেন এই দুই পাগল মানচিত্রকার। আর ফলাফল পাওয়া যায় হাতে হাতে। এই মানচিত্র জিডিসি থেকে প্রকাশিত হবার কয়েক বছর পরেই জিডিসির প্রতিদ্বন্দ্বী আরেকটি প্রতিষ্ঠানের তৈরি মানচিত্রে খুঁজে পাওয়া যায় অ্যাগ্লোকে। যেটা কিনা কখনো ছিলই না!

তবে নিজেদের দিকে তোলা সন্দেহের আঙ্গুলকে নীচে নামিয়ে দেয় প্রতিদ্বন্দ্বীরা ছোট্ট একটি দোকানের মাধ্যমে। যেটা কিনা মানচিত্রে দেখানো অ্যাগ্লো শহরের ভেতরেই অবস্থিত আর নামটাও অ্যাগ্লো জেনারেল স্টোর। প্রতিদ্বন্ধীদের কথানুসারে তারা এই দোকানের নাম অনুযায়ীর স্থানটিকে অ্যাগ্লো শহর বলে চিহ্নিত করেছেন। আদতে সেই দোকানের মালিক ছিলেন জিডিসির সাথেই জড়িত এক ব্যাক্তি ( এমএনএন )। ফলে যে উদ্দেশ্যে তৈরি হয়েছিল শহরটি সেটা কখনোই ঠিকঠাকভাবে পরিপূর্ণ করতে পারেনি অ্যাগ্লো।

বর্তমানে অবশ্য অ্যাগ্লো আসলেই মিথ্যে বা কাগুজে শহর কিনা সেটা নিয়ে যথেষ্ট প্রশ্ন রয়েছে। প্রথমে হয়তো কিছুই ছিলনা সেখানে। তবে মানচিত্রকারদের প্রভাবেই হোক বা অন্য কোন কারণে, বর্তমানে অ্যাগ্লো রয়েছে সর্বত্র। সাধারণ মানচিত্র থেকে শুরু করে গুগল ম্যাপেও অব্দি এ শহরের ছবি আর তথ্য পাবেন আপনি।

বছরের পর বছর ধরে মানচিত্রকারদের নির্মিত এমন অনেক নকল গ্রাম, শহর আর রাস্তা কিছুদিন মানচিত্রে নিজেদেরকে দেখিয়েছে আবার কিছুদিন পরেই নেই হয়ে গিয়েছে। তবে অ্যাগ্লো গল্পটা অন্যদের চাইতে খানিকটা আলাদাই। সৃষ্টির প্রথম থেকে এখন অব্দি মিথ্যে শহর হয়ে টিকে রয়েছে এটি সবখানে। আর একে নিয়ে তৈরি হয়েছে গল্প এবং চলচ্চিত্রও।






মন্তব্য চালু নেই