মেইন ম্যেনু

নখ কামড়ানো এতটা বিপজ্জনক!

নখ বা আঙুল কামড়ানো খুব কমন একটা বদভ্যাস। অনেকের মধ্যে এই বদভ্যাস রয়েছে। মনের সুখে অথবা দুঃখে নখ কামড়ে কাটে বা নখের পাশের চামড়া একটুখানি কেটে নেয়। এই বদভ্যাস এতটাই কমন যে, কাউকে জিজ্ঞেস করলে সে তার পরিচিতজনদের মধ্যে অন্তত পাঁচজনের নাম বলতে পারবেন, যারা এ কাজ করে।

যেহেতু নখ কামড়ানো দৃষ্টিকটু, তাই স্বজনরা এটা ত্যাগ করার পরামর্শ দেন। কিন্তু অনেককে দেখা যায় সবার উপস্থিতিতে সে এটা বাদ দিলেও, যখন একা থাকে তখন ঠিকই দাঁত দিয়ে নখ কাটা বা নখের চারপাশের চামড়া ছিঁড়তে থাকে।

আপাত দৃষ্টিতে এটাকে সাধারণ একটা বদভ্যাস মনে হতে পারে। কিন্তু ধারণাও করতে পারবেন না যে, এ জন্য ভবিষ্যতে ডাক্তারের কাছেও যেতে হতে পারে। যুক্তরাজ্যের জনপ্রিয় পত্রিকা ‘দ্য সান’ এর অনলাইনের খবরে বলা হয়েছে, এই বদভ্যাসটিকে ডাক্তারি ভাষায় বলা হয়ে থাকে ‘ডার্মাটোফেজিয়া’। চিকিৎসকদের মতে, দীর্ঘদিন ধরে এভাবে নখ এবং চারপাশের চামড়া কাটতে কাটতে একসময় নেল বেড নষ্ট হয়ে যায়। অর্থাৎ নখের নিচে যে নরম চামড়ার আবরণ থাকে, তা আর তৈরি হয় না। নখ তখন বসে যেতে থাকে ত্বকের গভীরে। ফলে ব্যথাদায়ক অবস্থার সৃষ্টি হয়।

এ ছাড়া আঙুলের চারপাশের ত্বক কামড়ালে সেখানে স্থায়ীভাবে দাগও বসে যায়। দীর্ঘদিনের এই বদভ্যাসের ফলে নখের চারপাশে যে ক্ষত হয়, সেখানে জীবাণু সংক্রমণের আশঙ্কাও থাকে। মুখের লালা থেকেও হতে পারে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ এবং আঙুল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় আঙুল কেটে বাদ দেওয়ার মতো অবস্থাও দেখা দিতে পারে।

সুতরাং আপনি যদি সহজে এই বদভ্যাসটি ত্যাগ করতে না পারেন, তাহলে চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ বা মনোরোগ বিশেষজ্ঞের সঙ্গে পরামর্শ করতে পারেন।






মন্তব্য চালু নেই