মেইন ম্যেনু

নতুন পথের সন্ধানে শরণার্থীরা

উত্তর ইউরোপে প্রবেশ করতে নতুন পথ খুঁজছে শরণার্থীরা। হাঙ্গেরির পথ ছেড়ে শরণার্থীদের বাসগুলি এখন ক্রোয়েশিয়ার দিকে যাচ্ছে। সেখান থেকে তারা স্লোভেনিয়া ও অস্ট্রিয়া হয়ে জার্মানিতে প্রবেশের পরিকল্পনা করছে।

শরণার্থীদের প্রবেশ ঠেকাতে সার্বিয়া সীমান্তে ১৭৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করেছে হাঙ্গেরি। এছাড়া সীমান্তে টহলও জোরদার করেছে দেশটি। গত সপ্তাহেই দেশটি জানিয়েছিল, মঙ্গলবার থেকে শরণার্থীদের প্রবেশ ঠেকাতে কঠোর আইন কার্যকর করা হবে। নতুন আইন অনুযায়ী, অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে কেউ হাঙ্গেরিতে প্রবেশ করলেই গ্রেফতার করা হবে। সোমবার মধ্যরাত থেকেই সীমান্ত পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছে হাঙ্গেরি। গ্রিস ও ইতালি হয়ে আসা প্রায় এক হাজার শরণার্থী মঙ্গলবার সারারাত খোলা আকাশের নিচে কাটিয়েছে ।

এদিকে হাঙ্গেরি সীমান্ত বন্ধের খবর পেয়ে সার্বিয়ায় আসা অনেক শরণার্থী এখন নতুন পথে উত্তর ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টা শুরু করেছেন। শরণার্থীবাহী বাসগুলোকে ক্রোয়েশিয়া সীমান্তের দিকে ছুটতে দেখা গেছে। সার্বিয়ার দুটি স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, বাসগুলি সার্বিয়ার দক্ষিণে প্রিসেভো শহরের দিকে যাচ্ছে। এই শহরের সঙ্গে ক্রোয়েশিয়ার সিড শহরের সীমান্ত রয়েছে। বেশ কয়েকজন শরণার্থী নিশ্চিত করেছেন, তারা নতুন পথে জার্মানিতে প্রবেশের চেষ্টা করছেন।

মেসিডোনিয়ায় অবস্থানরত সিরিয়ার শরণার্থী এমাদ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন,‘ আমরা হয়তো ক্রোয়েশিয়া, তারপর স্লোভেনিয়া এবং সেখান থেকে ভিয়েনা ও জার্মানিতে যাওয়ার চেষ্টা করতে পারি। এটা কোন ভাল পরিকল্পনা কিনা আমি জানি না। কিন্তু আমাদের চেষ্টা করতে হবে।’

এথেন্সে অবস্থানরত আবুল ফজল ইব্রাহিমি নামে এক আফগান শরণার্থী জানিয়েছেন, তিনিও ক্রোয়েশিয়া রুটটি ব্যবহারের চিন্তা করছেন। এছাড়া অনেকে জানিয়েছেন, তারা রোমানিয়া রুটটিও ব্যবহারের চিন্তা করছেন।






মন্তব্য চালু নেই