মেইন ম্যেনু

নতুন স্টাইলে বার্বি

বার্বি নামটা শুনলেই চোখে ভেসে উঠে পাতলা, পরিপাটী, সুন্দরী এক রমনীর ছবি। তবে এ বার সেই ধারণাই ভাঙতে চলেছে বার্বি। ৫৬ বছরের ঐতিহ্য ভেঙে বার্বি এ বার হচ্ছে লম্বা, ছোটখাট ও কার্ভি। বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে এই ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্রের বার্বি প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান ম্যাটেল।

বার্বির নতুন ফ্যাশনিস্তা লাইনে তিন রকম শারীরিক গঠনের সঙ্গে পাওয়া যাবে সাত ধরনের ত্বকের রঙ, ২২ রকমের চোখের মণি ও ২৪ রকম হেয়ারস্টাইল।

ম্যাটেলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রিচার্ড ডিকসন এক বিবৃতিতে বলেন, বিশ্ব তাদের চারপাশে যেমন মেয়েদের দেখে তাদের ধাঁচেই তৈরি হবে নতুন বার্বিরা। সময়ের সঙ্গে উন্নত ও পরিবর্তিত হতে শিখেছে বার্বি। এই সততার জন্যই বার্বি বিশ্বের এক নম্বর ফ্যাশন ডল।

অন্যদিকে, ম্যাটেলের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও গ্লোবাল জেনারেল ম্যানেজার ইভলিন মাজোকো বলেন, আমরা মনে করি মেয়েদের ও তাদের বাবা-মায়েদের প্রতি আমাদের কিছু দায়িত্ব রয়েছে। সৌন্দর্যের ধারণা বদলানো উচিত্।

এর আগে ২০১৪ সালের শেষ দিকে গ্রাফিক শিল্পী নিকোলে ল্যাম ‘ল্যামিলি’ নামের একটি পুতুল তৈরি করেন। যে পুতুলের শরীরের আকৃতিকে আদর্শ বলে জানিয়েছিল প্রস্তুতকারক সংস্থা। ২০০০ সালে এমি নামের প্লাস সাইজ মডেল তৈরি করে টোনার ডল। বার্বির এই নতুন রূপ তাদের পড়ে যাওয়া বাজার আবার তুলে ধরতে পারবে বলে আশা রাখছে ম্যাটেল।

প্রসঙ্গত, গত তিন বছর ধরে ক্রমশই কমেছে বার্বির বিক্রি। ২০১৫ সালের শুরুর দিকে এক ধাক্কায় ১৬ শতাংশ কমে যায় এর বিক্রি। তবে এই প্রথম নয়। গত বছর ওয়াইফাই ও ভয়েস রেকগনিশন প্রযুক্তির সাহায্যে হ্যালো বার্বি চালু করেছিল ম্যাটেল। ১৯৮০ সালে এসেছিল অ্যাফ্রো-স্টাইল চুলের ব্ল্যাক বার্বি।






মন্তব্য চালু নেই