মেইন ম্যেনু

নদীতে প্রবল স্রোত: পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে অচলাবস্থা

নদীতে প্রবল স্রোত আর ফেরি স্বল্পতার কারণে যানবাহন পারাপারে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে। স্বল্প সংখ্যক ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপারে উভয় ঘাটেই সৃষ্টি হচ্ছে যানজট। ভোগান্তিতে পড়ছে পারাপারের অপেক্ষায় থাকা যাত্রী ও পরিবহণ শ্রমিকরা।

উজান থেকে নেয়ে আসা প্রবল স্রোতের কারণে তিন দশক আগের পুরোনো ফেরি চলতে গিয়ে বার বার অকেজো হয়ে পড়ছে। স্রোতের প্রতিকূলে চলতে গিয়ে এ নৌ-রুটে চলাচলকারী ছোট-বড় ১৮টির মধ্যে ৪টি ফেরিই বিকল হয়ে পড়েছে। মেরামতের জন্য দেয়া হয়েছে। এসব ফেরি বিকল থাকার কারণে স্বল্প সংখ্যক ফেরি দিয়ে যান ও যাত্রী পারাপার করতে গিয়ে ট্রিপের সংখ্যা কমে গেছে। বৃহস্পতিবার রাত (২১ জুলাই) থেকেই নৌ-রুটের উভয় ঘাটে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।

শুক্রবার (২২ জুলাই) দুপুরে দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হওয়ায় পাটুরিয়া ঘাটে অন্তত ৫ শতাধিক ও দৌলতদিয়া ঘাটে ৩ শতাধিক বিভিন্ন ধরনের যানবাহন পারের অপেক্ষায় রয়েছে। এতে চরম ভোগন্তিতে পড়েছে সহস্রাধিক যাত্রী ও পরিবহণ শ্রমিক।

পাটুরিয়া ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক মহিউদ্দিন রাসেল এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে বর্তমানে ১২টি ফেরিতে করে যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। কিন্তু নদীতে তীব্র স্রোত থাকায় পারাপারে দ্বিগুণ সময় লাগায় যানজট কমছে না।

সূত্রমতে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে পাটুরিয়া ঘাটে যানজটের সৃষ্টি হয়। রাত নাগাদ অন্তত ৫০০ গাড়ির জট তৈরি হয়। শুক্রবার সকালের দিকে কিছুটা কমে এলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গাড়ির জট বাড়তে শুরু করে।

পাটুরিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ জানায়, পারের অপেক্ষায় ৩ শতাধিক ট্রাককে আলাদা সারি করে রাখা হয়েছে। তবে বাস ও অন্যান্য যান অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করা হচ্ছে।

এদিকে, স্রোতের কারণে বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর ও বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর ফেরি ২টি দৌলতদিয়া ঘাটে না ভিড়তে পেরে পাটুরিয়ায় ফেরত এসেছে। এছাড়া অপর ৪টি ফেরি কাবেরি, মাধবীলতা, বনলতা ও হাসনাহেনা বিকল হয়ে আছে।

অপরদিকে, দৌলতদিয়া ঘাটেও বেলা বাড়ার সঙ্গে বাড়ছে যানজট। পারের অপেক্ষায় বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ৩ শতাধিক বেশি গাড়ি আটকা পড়েছিল। তবে দুপুরের পরে কিছুটা উন্নতি হয় অবস্থার।






মন্তব্য চালু নেই