মেইন ম্যেনু

নাগরিকত্ব পাচ্ছেন তিন বিদেশি ফুটবলার

ভিনদেশি তিন ফুটবলারকে নাগরিকত্ব দিয়ে বাংলাদেশ দলকে শক্তিশালী করতে চাচ্ছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। খবরটা নতুন নয়। তবে নতুন খবর হচ্ছে যে তিনজন ফুটবলারকে নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা ভাবছে বাফুফে তারাও বাংলাদেশের হয়ে খেলতে আগ্রহী। ভিনদেশি এই তিন ফুটবলার হলেন ঘানার সামাদ ইউসুফ, গায়নার ইসমাইল বাঙ্গুরা ও নাইজেরিয়ার নাকোচা কিংসলে।

এই তিন ফুটবলার বুধবার আলোচনায় বসেন বাংলাদেশ দলের ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবু ও বাফুফে সভাপতি আবু নাঈম সোহাগের সঙ্গে। সেখানে তারা বাংলাদেশের হয়ে খেলার আগ্রহ প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে তাদের করণীয় নিয়ে কথা বলেন আমিরুল ইসলাম বাবু ও আবু নাঈম সোহাগ।

বাংলাদেশের জাতীয় ফুটবল দলকে শক্তিশালী করতে তিনজন বিদেশী খেলোয়াড়কে নাগরিকত্ব দেওয়ার একটি প্রক্রিয়া শুরু করেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। আফ্রিকার এই তিনজন ফুটবলারকে বাংলাদেশ দলে পাওয়া গেলে জাতীয় দল ভালো করবে, ফলে তরুণরা এই খেলার প্রতি আরো আকৃষ্ট হবে। এমনটাই ধারণা করছেন ফেডারেশনের কর্মকর্তাগণ। সেপ্টেম্বরে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামার আগেই তাদের জাতীয় দলে নেওয়ার প্রক্রীয়া সম্পন্ন হবে বলে জানা গেছে।

অবশ্য কেউ কেউ বিষয়টির সমালোচনাও করছেন। তাদের মতে এটা ফুটবলের উন্নয়ন নয়। এটা সহজ পথে পাওয়া সাফল্য। এর চেয়ে তৃণমূল পর্যায় থেকে খেলোয়াড় তুলে আনার উপর বেশি জোর দেওয়া উচিত।

বিদেশি ফুটবলারদেরকে নাগরিকত্ব দেওয়ার এ ধরণের উদ্যোগ বাংলাদেশে এই প্রথম। বিদেশী তিনজন খেলোয়াড়কে জাতীয় দলে নিতে সবচেয়ে বেশি অবদান দলের ডাচ কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ। তিনিই ফুটবল ফেডারেশনকে এ পরামর্শ দেন।

বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফার নিয়মানুযায়ী কোন খেলোয়াড় টানা পাঁচ বছর একটি দেশে খেললে তিনি ঐ দেশের জাতীয় দলে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেন। ফিফার করা এই নিয়মের সুযোগটিই বাংলাদেশ নিতে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে বাফুফে সভাপতি কাজী মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন বলেছিলেন, ‘আমরা এমন কিছু করছি না যেটা রকেট সাইনটিস্ট হিসেবে আমরা আবিষ্কার করেছি। এটা গোটা পৃথিবী করছে, আমরা শুধু প্যাটার্নটা ফলো করছি।’

তবে কেউ কেউ মনে করছেন এই নাগরিকত্ব প্রদান দেশের ফুটবলারদের হতাশ করতে পারে। কারণ, বিদেশিদের জাতীয় দলে খেলার সুযোগ দেওয়া হলে দেশি ফুটবলাররা বঞ্চিত হবেন।






মন্তব্য চালু নেই