মেইন ম্যেনু

বেরোবিতে নারী দিবসে সৈয়দ শামসুল হক :

নারীর মর্যাদা বৃদ্ধিতে পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন প্রয়োজন

এইচ.এম নুর আলম, বেরোবি প্রতিনিধি: বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী বলেছেন, নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে নারীদেরকেই সংগঠিত হতে হবে। পরিবারে নারী ও পুরুষ উভয়ের অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে হবে। অন্যদিকে সব্যসাচী সাহিত্যিক সৈয়দ শামসুল হক বলেছেন, নারীর মর্যাদা বৃদ্ধিতে পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন প্রয়োজন।

আজ মঙ্গলবার বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত আন্তর্জাতিক নারী দিবস ও রোকেয়া স্মরণ অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে তিনি এ কথা বলেন। দেশের বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে ও উন্নয়নে নারীর অবদানের কথা তুলে ধরে রাশেদা কে চৌধুরী আরো বলেন, বাংলাদেশ সম্ভাবনার দেশ। এদেশের নারীরা ঘর গোছানো থেকে শুরু করে মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত সবই পারে। এভারেস্ট জয়ের মতো কঠিন জয় নারী প্রমাণ করেছে নারীরাও পারে। সুতরাং নারীদেরকেই ঘুরে দাঁড়াতে হবে। তিনি ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমাদেরকে রোকেয়ার আদর্শে উজ্জিবিত হয়ে নিজেদেরকে যোগ্য হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

12178046_1528614984111150_1963064134_n

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ কে এম নূর-উন-নবীর সভাপতিত্বে স্বাধীনতা স্মারক প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত আলোচনায় সব্যসাচী সাহিত্যিক সৈয়দ শামসুল হক বলেছেন, নারীর মর্যাদা বৃদ্ধিতে পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন প্রয়োজন। নারীকে নারী কিংবা পুরুষকে পুরুষ হিসেবে না ভেবে নারী এবং পুরুষ উভয়কে মানুষ হিসেবে ভাবতে হবে। পরিবারের নারীকেও সমান অংশগ্রহনে সুযোগ দিতে হবে।

সমাজে নারীর বিভিন্ন ইতিবাচক ভূমিকা তুলে ধরে বলেন, দুর্নীতি রোধেও নারীরা অবদান রাখতে পারে। অবৈধ সম্পদ ঘরে আনতে না দিলে পুরুষের দুর্নীতি বন্ধ হয়ে আসবে। তাই নারীদেরকে নিজেদের অধিকার রক্ষা এবং সমাজে তাঁদের অবদান রাখতে আরো সচেতন হতে হবে। নারীর মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় রোকেয়ার ভূমিকা উল্লেখ করে বলেন, রোকেয়া চর্চার মাধ্যমে নারীর প্রকৃত দিক নির্দেশনা পাওয়া যাবে। তিনি সকলকে রোকেয়া চর্চা ও গবেষণার প্রতি গুরুত্ব দেওয়ার আহবান জানান। কথাসাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক, উপাচার্যের সহধর্মিনী মিসেস গুল নাহার নবী, কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সাইদুল হক, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. তাজুল ইসলাম, কলা অনুষদের সাবেক ডিন অধ্যাপক ড. নাজমুল হক এবং উইমেন এন্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হুমায়ুন কবীর এতে বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে অতিথিদেরকে উত্তরীয় ও সম্মননা স্মারক প্রদান করা হয়।

এর আগে সকাল ১০টায় আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে ক্যাম্পাসে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়।

বিকেলে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়।






মন্তব্য চালু নেই