মেইন ম্যেনু

নারী না পুরুষ, কারা বেশি মিথ্যা বলে?

কথায় আছে একজন নারীর মন নাকি স্বয়ং বিধাতাও বুঝতে পারেন না। তাদের মনে এক আর মুখে নাকি থাকে আরেক। আবার পুরুষদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা নাকি মিথ্যা বলায় সেরকম পটু। আবার পুরুষদের দাবী, মিথ্যা বলায় বেশ পারদর্শী নারীরা।

তাহলে সত্যি কি? কারা বেশী মিথ্যে বলেন, নারী নাকি পুরুষ? এমন প্রশ্নে উত্তর মিলেছে এক ব্রিটিশ গবেষণায়।

গবেষকদের মতে, মহিলারা নন, বরং পুরুষেরাই মিথ্যা বলেন বেশি। আর তাই নারী ‘ছলনাময়ী’ খেতাবটি আসলে পুরুষেরই প্রাপ্য।

গবেষণার রিপোর্ট অনুযায়ী দেখা গিয়েছে, মহিলাদের তুলনায় পুরুষরা অনেক বেশি মিথ্যা কথা বলেন। মহিলারাও বলেন, তবে তার পিছনে থাকে ভিন্ন কারণ। তাও পুরুষদের থেকে কম।

যেখানে একজন মহিলা সাধারণত কাউকে কষ্ট দিতে না চাওয়ার কারণে সত্যি কথা চেপে রাখেন, সেখানে একজন পুরুষ নিজের পয়সা বাঁচাতে বা কোনও বাজি জিততেও মিথ্যার আশ্রয় নেন। অনেক সময় একটি মেয়েকে পটাতে বা স্রেফ বন্ধুদের সামনে ‘হিরো’ সাজতেও অকারণে মিথ্যা বলেন পুরুষেরা। তবে হ্যা, সব পুরুষের ক্ষেত্রে এটা সত্যি নয়।

গবেষণা বলছে, একজন পুরুষ সপ্তাহে অন্তত চার বার মিথ্যা কথা বলেন। কিন্তু, মহিলারা সেক্ষেত্রে সপ্তাহে মাত্র তিন বার এমনটা করে থাকেন। কোনও সমস্যা থেকে মুক্তি পেতেও পুরুষরা মিথ্যায় আশ্রয় নেন। কোনও ঘটনাকে রং চড়িয়ে বলার চেষ্টা করেন অনেক পুরুষই।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, কোন বিষয়ে সবথেকে বেশি মিথ্যা বলেন পুরুষেরা?

প্রায় ২০০০জন ব্রিটিশ যুবকদের একটি সমীক্ষা চালান গবেষকেরা। দেখা গিয়েছে, পুরুষেরা সবচেয়ে বেশি মিথ্যা নিজের মানসিক স্থিতি নিয়ে বলে থাকেন। শত সমস্যার মধ্যে থাকলেও তারা ‘আমি ঠিক আছি’ বলে কথা এড়িয়ে যান। পুরুষদের ক্ষেত্রে দ্বিতীয় মিথ্যা হল, কোনও উপহার পছন্দ না হলেও তারা সেটি পছন্দ করার ভান করেন। এছাড়াও, কোন জিনিসের দাম ও নিজের অসুস্থতা নিয়েও মিথ্যার আশ্রয় নেন পুরুষরা।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই