মেইন ম্যেনু

নার্স নিয়োগের নামে চাঁদাবাজির অভিযোগ

নার্স নিয়োগের নামে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে কথিত সরকার দলীয় নার্স নেতাদের বিরুদ্ধে। অভিযোগ রয়েছে রাজধানীর একাধিক সরকারি বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত চার নার্স নেতা নিশ্চিত নিয়োগ পাইয়ে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে নার্স প্রতি পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করছেন। তারা বলছেন, তাদের দেয়া তালিকার বাইরে কারও চাকরি হবে না।

নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, কথিত ওই নার্স নেতাদের চাঁদাবাজির কথা স্বাস্থ্যমন্ত্রী, সচিব ও চিকিৎসক নেতাদের কানেও পৌঁছেছে। তাদের নির্দেশে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা খোঁজ নিয়ে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে। তাদের মধ্যে দুইজন ঢামেক (ঢাকা মেডিকেল কলেজ), একজন বার্ন ইউনিট, একজন ন্যাশনাল মেডিকেল ও আরেকজন গাজীপুরে কর্মরত রয়েছেন।

পাবলিক সার্ভিস কমিশন (পিএসসি) এর অধীনে শুক্রবার সাড়ে তিন সহস্রাধিক সিনিয়র স্টাফ নার্স নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পিএসসির বরাত দিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, পরীক্ষায় ১৮ হাজার পরীক্ষার্থীও মধ্যে ১২ হাজারেরও বেশি নার্স নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে।

পিএসসির মাধ্যমে পরীক্ষা গ্রহণ করা হলেও ব্যাচ, মেধা ও সিনিয়রটির ভিত্তিতে বাংলাদেশ ডিপ্লোমা ও গ্রাজুয়েট বেকার নার্সেস অ্যাসোসিয়েশন আন্দোলন চালিয়ে আসছে। আন্দোলনের বিপক্ষে অবস্থানকারী কথিত নার্স নেতারা নিজেদের সরকারের কাছের লোক পরিচয়ে চাঁদাবাজির জাল বিস্তার করেছেন।

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) এর মহাসচিব ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান শনিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লেখেন, প্রিয় নার্স সহকর্মী ভাই বোনেরা, আপনাদের চাকরি দেয়ার নামে এক প্রতারক চক্র সক্রিয় হয়েছে ।

তারা চাকরি দেয়ার নিশ্চয়তার কথা বলে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করছে, ভুলেও এ চক্রের ফাঁদে পা দেবেন না । এই তথ্যটা সবার মধ্যে প্রচারের অনুরোধ রইলো । ইকবাল আর্সলান, মহাসচিব বিএমএ, সভাপতি স্বাচিপ।

রোববার এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, নিশ্চিত চাকরি পাাইয়ে দেয়ার নামে চাঁদাবাজির অপচেষ্টার অভিযোগ তিনিও পেয়েছেন । এসময় তিনি নিয়োগের বিষয়ে কাউকে কোনো টাকা না দেয়ার পরামর্শ দেন।






মন্তব্য চালু নেই