মেইন ম্যেনু

নিউইয়র্কে মুখোমুখি শচীন-ওয়ার্ন

একটা ভালো উদ্যোগ সঙ্গী করে সাবেক ক্রিকেট তারকাদের নিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে অল স্টারস সিরিজ। ফুটবল সারা দুনিয়া খেলে। অথচ ক্রিকেট খেলে গুটি কয়েক দেশ। এই যে, শচীন টেন্ডুলকার-শেন ওয়ার্ন খেলাটির এত বড় তারকা তাদের ক’টা দেশের লোকজনই বা চেনে। ক্রিকেটকে কয়েকটি দেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দিতে চাইছেন শচীন। এজন্যই বেছে নেওয়া হয়েছে ক্রিকেট অনগ্রসর দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে।

শচীন ব্লাস্টার্স ও ওয়ার্ন ওয়ারিয়র্স নামে দুই দলের নেতৃত্ব দেবেন দুই কিংবদন্তী শচীন টেন্ডুলকার এবং শেন ওয়ার্ন। নিউ ইয়র্কের সিটি ফিল্ডে শনিবার তিন ম্যাচের সিরিজের প্রথমটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১২.০০ টায়। দ্বিতীয় ম্যাচটি হাস্টনে ১২ নভেম্বর (বাংলাদেশ সময় সকাল ৮.০০ টায়) এবং ১৫ নভেম্বর শেষ ম্যাচটি হবে লস অ্যাঞ্জেলসে (বাংলাদেশ সময় ৮.৩০ টায়)। সবগুলো ম্যাচই সরাসরি সম্প্রচার করবে স্টার স্পোর্টস।

শচীন মনে করেন, অল স্টারস ক্রিকেট সিরিজের কল্যাণে যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ ক্রিকেটের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠবে। বিশেষ করে তরুণরা বেসবল খেলার জন্য ব্যাট নেয়ার পাশাপাশি ক্রিকেট ব্যাটও তুলে নেবে।

লিটল মাস্টার বলেন, ‘এই ধারণা আসলে ক্রিকেটকে বিশ্বায়িত করার জন্য। আমরা এখানে এসেছি তরুণ এবং নারী ক্রিকেটারদের উৎসাহিত করতে।’

অল স্টার সিরিজে যেই কিংবদন্তী ক্রিকেটারা খেলবেন তাদের নাম দেখলেই প্রাণ জুড়িয়ে যাবে ক্রিকেটপ্রেমীদের। শচীন ও শেন ওয়ার্নের পাশাপাশি ওয়াসিম আকরাম, রিকি পন্টিং, শোয়েব আখতার, সৌরভ গাঙ্গুলি, কোর্টনি ওয়ালশ, কার্টলি অ্যামব্রোস, মুত্তিয়া মুরালিধরন, অ্যালান ডোনাল্ড, ম্যাথু হেইডেনের মতো বিশ্বসেরা খেলোয়াড়রা এতে অংশ নিবেন। বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের টাইমস স্কোয়ারে লটারির মাধ্যমে দলগঠনও চূড়ান্ত করা হয়।

টেন্ডুলকারে তার দলে সাবেক ভারতীয় সতীর্থ ভিভিএস লক্ষণ, সৌরভ গাঙ্গুলি ও বীরেন্দর শেবাগকে পান। সঙ্গে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিংবদন্তী তারকা ব্রায়ান লারা তো রয়েছেনই। সাবেক অস্ট্রেলিয়ান পেসার গ্লেন ম্যাকগ্রা, ওয়েস্ট ইন্ডিজের গতিদানব কার্টলি অ্যামব্রোস, দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক পেসার শন পোলক ও শ্রীলংকার কিংবদন্তী স্পিনার মুত্তিয়া মুরালিধরনকে সামলাতে হবে না শচীনকে। এরা সবাই শচীনের দলেই রয়েছেন।

ড্র ভাগ্যে শচীন যেমন তার সাবেক ভারতীয় সতীর্থদের পেয়েছেন, শেন ওয়ার্নও তার ‘ওয়ার্ন ওয়ারিয়র্সে’ ম্যাথু হেইডেন, রিকি পন্টিং ও অ্যান্ড্রু সাইমন্ডসের মতো সাবেক অস্ট্রেলিয়ান সতীর্থদের পেয়েছেন। ওয়ার্ন তার পেস বোলিং অ্যাটাকে স্বপ্নের একাদশকে পেয়েছেন। কোর্টনি ওয়ালশ ও সাদা বিদ্যুৎ খ্যাত অ্যালান ডোনাল্ডের সঙ্গে ওয়াসিম আকরামকে দলে পেয়েছেন তিনি।

লটারিতে ২৬ জন খেলোয়াড়ের ভাগ্য নির্ধারণ হলেও শোয়েব আখতারের ভাগ্য নির্ধারিত হয় টসের মাধ্যমে। ওয়ার্ন টসে হেরে গেলে শচীন তার দলে শোয়েব আখতারকে পেয়ে যান। মাত্র চারদিন আগে পিন্ডি এক্সপ্রেস শচীনের দলে খেলার ব্যাপারে চরম আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। নিয়তি তার ডাকে সাড়া দেয়।

সিটি ফিল্ডে অন্তত এক হাজার তরুণ তাদের হিরোদের খেলা সামনাসামনি দেখতে পারবে। শচীনের আশা, ক্রিকেটকে আবার অলিম্পিকে দেখা যাবে। একবারই অলিম্পিকে ক্রিকেট খেলা হয়েছিল, ১৯০০ সালে। এই মাসের শেষের দিকে আইসিসি এবং আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি সুইজারল্যান্ডে আলোচনায় বসবে। সেখানে আইসিসি ক্রিকেটকে ২০২৪ সালের অলিম্পিকে রাখার দাবি তুলে ধরবে।

আগামী তিন বছরে শচীন ব্লাস্টার্স এবং ওয়ার্ন ওয়ারিয়র্স পরস্পরের মুখোমুখি হবে মোট ১৫ বার। যার প্রথম তিনটি হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে। নিউইয়র্কের সিটি ফিল্ডের যে মাঠে খেলা হবে প্রথম টি-২০ সেটি মূলত বেসবলের। এই স্টেডিয়ামের আসন সংখ্যা ৪৫ হাজার। ধারণা করা হচ্ছে, তারকায় ঠাসা ম্যাচটি দেখতে দর্শকদের ভিড় জমবে।

শচীন ব্লাস্টার্স: শচীন টেন্ডুলকার (অধিনায়ক), ভিভিএস লক্ষ্মণ, সৌরভ গাঙ্গুলি, বীরেন্দর শেবাগ, ব্রায়ান লারা, মাহেলা জয়াবর্ধনে, কার্ল হুপার, ল্যান্স ক্লুজনার, শন পোলক, মঈন খান, গ্রায়েম শন, গ্লেন ম্যাকগ্রা, মুত্তিয়া মুরালিধরন, শোয়েব আখতার ও কার্টলি অ্যামব্রোস।

ওয়ার্ন ওয়ারিয়র্স: শেন ওয়ার্ন (অধিনায়ক), ম্যাথু হেইডেন, রিকি পন্টিং, মাইকেল ভন, জ্যাক ক্যালিস, কুমার সাঙ্গাকারা, অ্যান্ড্রু সাইমন্ডস, জন্ডি রোডস, সাকলাইন মুশতাক, ওয়াসিম আকরাম, ড্যানিয়েল ভেট্টরি, কোর্টনি ওয়ালশ, অ্যালান ডোনাল্ড ও অজিত আগারকার।






মন্তব্য চালু নেই