মেইন ম্যেনু

নিজামীর রিভিউ আবেদনের শুনানি কাল

যুদ্ধাপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদণ্ড বহালের রায় পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) চেয়ে করা আবেদন শুনানির জন্য আগামীকাল মঙ্গলবারের দিন ধার্য রয়েছে।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ আসামিপক্ষে সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে গত ১০ এপ্রিল এ আদেশ দেয়।

বেঞ্চের অন্য সদস্যরা হলেন- বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

ফাঁসির রায় রিভিউ বা পুনর্বিবেচনার জন্য করা নিজামীর আবেদন খারিজ হলেই সরকার তাঁর ফাঁসি কার্যকর করার প্রক্রিয়া শুরু করতে পারবে। যদিও নিজামী রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাওয়ার সুযোগ পাবেন।

মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে আপিল বিভাগের দেয়া রায় পুনর্বিবেচনার জন্য ২৯ মার্চ আবেদন করেন নিজামী। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিমকোর্টের চেম্বার কোর্ট বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৩ এপ্রিল প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ বেঞ্চে রিভিউ শুনানির দিন নির্ধারণ বিষয়ে শুনানির জন্য ধার্য করে।

৩ এপ্রিল বিষয়টি আপিল বিভাগে উত্থাপিত হলে আসামিপক্ষ সময় চায়। পরে আদালত শুনানি এক সপ্তাহ মুলতবির আদেশ দেয়। গত ১০ এপ্রিল বিষয়টি উত্থাপিত হলে আসামিপক্ষ সময় চায়।

২০১৪ সালের ২৯ অক্টোবর আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল-১ জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামীকে মৃত্যুদণ্ড দেন। একাত্তরে বুদ্ধিজীবী হত্যা, গণহত্যাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে নিজামীকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। এ রায়ের পর ওই বছরের ২৩ নভেম্বর আপিল করেন নিজামী। এ আপিলের ওপর শুনানি শেষে গত ৬ জানুয়ারি ফাঁসির রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। এর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয় ১৫ মার্চ।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ জামায়াতের এ শীর্ষ নেতার বিষয়ে রায়ের সংক্ষিপ্ত অংশ প্রকাশ করে। রায় প্রদানকারী বিচারপতিদের স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে ১৫ মার্চ পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হয়।

রায়ের কপি হাতে পেয়ে ট্রাইব্যুনাল সেদিন রাতেই নিজামীর বিরুদ্ধে মৃত্যু পরোয়ানা জারি করেন। গাজীপুরের কাশিমপুর-২ কারাগারে ১৬ মার্চ তাকে এ পরোয়ানা পড়ে শোনানো হয়। এরপর নিজামীর নির্দেশনা পেয়ে তার আইনজীবীরা ২৯ মার্চ রিভিউ আবেদন দাখিল করেন।






মন্তব্য চালু নেই