মেইন ম্যেনু

নিজেকে প্রাণবন্ত রাখতে প্রতিদিন করুন এই প্রশ্নগুলো

আমরা ভাবি, আমরা আমাদের খুব খেয়াল রাখি। অসুস্থ্ হয়ে গেলে মনে হয়, ‘আমি তো ঠিকমত খাই, তবু কেন অসুস্থ হয়ে যাই?’ প্রকৃতপক্ষে আপনি আপনার যথাযথ যত্ন নেন না। তাই আপনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। কীভাবে নিজের জীবনকে সতেজ এবং ঝরঝরে রাখবেন? তৈরি করুন একটি প্রশ্ন তালিকা আর চোখ বুলান দিনে কয়েকবার। তাহলেই হল! অবাক হচ্ছেন? আসুন আগে জেনে নিই প্রশ্নগুলো-

শেষ কখন পানি খেয়েছেন?
ঘন ঘন পানি পান করা স্বাস্থ্যের জন্য ভাল। সেটা যদিও আমরা সবাই জানি কিন্তু প্রায়ই ভুলে যাই পানি পান করতে। এই প্রশ্নের উত্তর যদি আধঘন্টা থেকে ১ ঘন্টা হয়ে থাকে তাহলে এক্ষুণি ১ গ্লাস পানি পান করুন।

শেষ কখন খাবার খেয়েছেন?
যদি ২ থেকে ৩ ঘন্টার বেশী সময় আগে আপনি খাবার খেয়ে থাকেন তাহলে আপনার দ্রুতই খাবার গ্রহণ করা প্রয়োজন। ভাল হয় কার্বোহাইড্রেট জাতীয় কিছু খেলে। কারণ ক্ষুদার্থ মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা কমে যেতে শুরু করে। এমনকি বেশী ক্ষুদার্থ হলে খেতে যাওয়ার পরিবর্তে আপনার মস্তিষ্ক এলোমেলো অনেক কিছু ভাবতে শুরু করে।

শেষ কবে শরীরচর্চা করেছেন?
অনেক সময় এমন হয় যে, শরীরচর্চা আমরা শুরু করি কিন্তু আশানুরূপ ফলাফল না পেয়ে আবার ছেড়ে দিই। কিন্তু ব্যায়াম আসলে কোন ম্যাজিক নয়। তাই ঝটপট আপনি কোন সুফল নাও পেতে পারেন। আবার শুধু শরীরের সৌন্দর্য্য বর্ধনের একটি উপায় হিসেবে যদি ব্যায়ামকে দেখেন তাহলে সেটিও ভুল। কারণ ব্যায়ামের প্রয়োজন আপনাকে ফিট রাখার জন্য। আপনি নিয়মিত ব্যায়াম করেন না মানে আপনি নিজেকে ফিট রাখার জন্য কিছুই করেন না।

শেষ আপনার কোন কাজটি আপনাকে সন্তুষ্ট করেছিল?
কোন কাজ খুব ভালবাসা নিয়ে করছেন। শ্রম দিয়েই যাচ্ছেন কিন্তু মনের মত হচ্ছে না। এমন ঘটনা আমাদের জীবনে বার বার ঘটতে থাকলে আমরা শেষ পর্যন্ত আর রেশ ধরে রাখতে পারি না। এক সময় কোন কাজ শেষ না করাই আমাদের বৈশিষ্ট্য হয়ে দাঁড়ায়। আর এভাবে মনে মনে আমরা অসন্তুষ্টিতে ভুগতে থাকি। তাই এমন কিছু করুন যা আপনাকে এই অনুভূতি দেবে যে আপনি পূর্ণ! একটা চিঠি লিখুন, একটা গান সম্পূর্ণ শিখুন। ছোট কিছু দিয়ে শুরু করুন। রোজ অনুশীলন করুন এমন অন্তত একটি কাজ।






মন্তব্য চালু নেই