মেইন ম্যেনু

নিজেদের জালেই আটকা পড়বে ভারত?

বেঙ্গালুরুর চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে এখন পর্যন্ত দেখা গেছে স্পিনারদের দাপট। এই ভেন্যুতেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। স্পিন সহায়ক উইকেট দেখে হয়তো খুশির হাওয়াই বইছে ভারতীয় শিবিরে। তবে মহেন্দ্র সিং ধোনিরা কিন্তু আটকা পড়ে যেতে পারেন নিজেদের জালেই! যেমনটা দেখা গিয়েছিল নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের প্রথম ম্যাচে।

নাগপুরে অনুষ্ঠিত সেই ম্যাচে দারুণ বোলিং করে নিউজিল্যান্ডকে মাত্র ১২৬ রানে আটকে রেখেছিলেন ভারতীয় স্পিনাররা। কিন্তু ১২৭ রানের সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ভারতের ইনিংস গুটিয়ে গিয়েছিল মাত্র ৭৮ রানে। ইশ সোধি, মিচেল সান্টনারদের দারুণ বোলিংয়ের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপ। বেঙ্গালুরুর স্পিন সহায়ক উইকেটে এই ম্যাচের স্মৃতি অনুপ্রাণিত করতে পারে বাংলাদেশকে।

বুধবার বাংলাদেশ-ভারতের জন্য যে পিচটি প্রস্তুত করা হচ্ছে, সেই পিচেই খেলতে দেখা গিয়েছিল শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। এই ম্যাচে দারুণ বোলিং করেছিলেন দুই উইন্ডিজ স্পিনার সুলিমান বেন ও স্যামুয়েল বদ্রি। বাংলাদেশের স্পিনাররাও কিন্তু বিশ্বকাপে ভালো নৈপুণ্য দেখিয়ে নজর কেড়েছেন। আরাফাত সানির নিষিদ্ধ হওয়াটা একটা বড় ধাক্কা হলেও আশা কথা যে, ফর্মে ফিরেছেন সাকিব আল হাসান। অভিষিক্ত সাকলাইন সজীব অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে ভালো নৈপুণ্য দেখাতে না পারলেও জ্বলে উঠতে পারেন ভারতের বিপক্ষে। ভারতের ব্যাটসম্যানদেরও এবারের বিশ্বকাপে স্পিনারদের বিপক্ষে ব্যাটিং করতে বেশ খাবি খেতে হচ্ছে। ইডেন গার্ডেনসে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটা দাপট দেখিয়ে জিতলেও পাকিস্তানের অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদির স্পিন বোলিংয়ের সামনে কিছুটা কষ্টই করতে হয়েছে বিরাট কোহলি, যুবরাজ সিংদের। চার ওভার বল করে আফ্রিদি দিয়েছিলেন ২৫ রান।

বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে প্রথম দুইটি ম্যাচ হেরে শুরুটা ভালো না হলেও স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে জয়ের জন্য মরিয়া হয়েই মাঠে নামবেন মাশরাফিরা। আর স্পিন সহায়ক উইকেটে ভারতই বেশি সুবিধা পাবে বলে মনে হলেও ভিন্ন কিছু ঘটিয়েও দিতে পারে লাল-সবুজের দল। ভারতই আটকা পড়তে পারে নিজেদের তৈরি করা জালে।






মন্তব্য চালু নেই