মেইন ম্যেনু

নিজের প্রিয় বিছানাটির ব্যাপারে যে ১০টি ভুল আপনি রোজ করছেন!

নিজের বিছানাটিকে সকলের কাছেই এক টুকরো স্বর্গ মনে হয়। কিন্তু আসলেই কি আপনার এই বিছানাটি নিরাপদ আপনার জন্য? উত্তর হচ্ছে- “না”! জাজিম, তোশক, ম্যাট্রেস, বালিস, বিছানার চাদর, বালিশের কাভার ইত্যাদি সব মিলিয়েই বিছানা। আর দুঃখজনক হলেও সত্যি যে আমাদের দেশে এই বিছানার ব্যাপারে একেবারেই সচেতন নই আমরা। কারো ধারণাও নেই যে এই বিছানার ব্যাপারে কত রকমের ভুল ধারণা আমাদের আছে, এবং সেগুলোর কারণে দিন দিন অসুস্থ হয়ে পড়ছি আমরা। যেমন, আপনি কি জানেন যে জাজিম-তোশক ইত্যাদি নিয়মিত ভিত্তিতে ড্রাই ওয়াশ করতে হয়? চলুন, জেনে নিই আপনার সেই ভ্রান্ত ধারণাগুলো এবং এর প্রতিকার।

১) বিচানার চাদর বদলে ফেললেই কি বিছানা পরিষ্কার হয়ে যায়? একদম নয়? জাজিম, তোশক, ম্যাট্রেস ইত্যাদিতে লুকিয়ে থাকে অসংখ্য জীবাণু ও ডাস্ট মাইট যা আপনাকে অসুস্থ করার জন্য যথেষ্ট। আমাদের দেশে জাজিম-তোশক বা ম্যাট্রেস একবার কেনার পর টানা অনেক বছর ব্যবহার করি আমরা, এগুলোর জীবাণু ধ্বংস করার জন্য যে ড্রাই ক্লিন করতে হয়, সেটা বেশিরভাগ মানুষই জানি না। (ড্রাই ক্লিন করার পদ্ধতি জানতে “আরও পড়ুন” অপশনে দেখুন।)

২) প্রতিদিন বিছানার চাদর খুব কম মানুষই বদল করে থাকেন। জেনে রাখুন, আপনার স্বাস্থ্যের জন্য এটা মোটেও ভালো নয়।

৩) অনেকেই একই বালিশ বছরের পর বছর ব্যবহার করেন, একই বালিশের কাভার দিনের পর দিন ব্যবহার করেন। জেনে রাখুন, আপনার মুখে ব্রণ ও মাথায় খুশকি হবার অন্যতম বড় কারণ এই বালিশ। নিয়মিত বালিশ পরিষ্কার করা জরুরী এবং বালিশের কাভার রোজ বদলে ফেলা জরুরী। ডায়রিয়া, ফুড পয়জনিং, সর্দি কাশি ইত্যাদি সব রোগের অন্যতম কারণ নোংরা বিছানা।

৪) বালিশের কাভার হিসাবে খসখসে কাপড় ব্যবহার না করা সর্বোত্তম। এতে আপনার চেহারার ক্ষতি হয় মারাত্মক ভাবে। শার্টিণ , সিল্ক ইত্যাদি কাপড়ের বালিশের কাভার ব্যবহার করুন। অবাক লাগছে? কিন্ত এটাই আপনার জন্য ভালো।

৫) আমাদের মাঝে একটা ভ্রান্ত ধারণা আছে যে বিছানা খুব শক্ত হওয়া ভালো, নরম বিছানায় শুলে নানান রকম শারীরিক সমস্যা হতে পারে। তবে সত্যটা এই যে, বিছানা খব শক্ত হওয়াও ভালো নয়। বরং সেটাও আপনার দেহে নানা সমস্যা তৈরি করে। বিছানা ফোমের না হয়াই ভালো। তবে নরম জাজিম তোশক বা ভালো ম্যাট্রেসের বিছানা হতে কোন অসুবিধা নেই।

৬) বেশি উঁচু বালিশে শোয়া বা বেশী শক্ত বালিশে ঘুমানো মোটেও আপনার জন্য ভালো নয়। বালিশ হবে ফ্লাপি ও মাঝারি উচ্চতার।

৭) হরেক রকম ডিজাইনের সিনথেটিক চাদর বা বেড কাভারের শৌখিন আমরা অনেকেই। জেনে রাখুন, ঘুমানোর জন্য সেরা হচ্ছে পাতলা নরম সুতির বিছানার চাদর।

৮) আমরা সাধারণত সেই একই ভাবে বিছানা কিনে থাকি, যা অন্যরা কেনে। সেই একই জাজিম-তোশক বা ম্যাট্রেস। ধরে নিই যে সবই একরকম। কিন্ত সত্য এই যে সব একরকম নয়। একেকজন একেক রকম জাজিম, তোশক বা ম্যাট্রেসে আরাম অনুভব করতে পারেন। যার জন্য যেটা আরামদায়ক মনে হয়, তার উচিত সেটাই পরখ করে দেখে নিয়ে তারপর কেনা। যেমন অনেকের জন্য পাতলা জাজিম আর মোটা তোশক আরামদায়ক মনে হতে পারে। অনেকের কাছে ম্যাট্রেসের ওপরে পাতলা তোশক বিছিয়ে ঘুমানো শান্তির মনে হতে পারে। নির্ভর করে যার যার চাহিদার ওপরে।

৯) যখন তখন বিছানায় উঠে পড়া মোটেও ভালো অভ্যাস নয়। বিশেষ করে বাড়িতে বাচ্চা থাকলে। বাইরে থেকে ফিরে শাওয়ার নিয়ে বা পোশাক বদলে হাত-পা ধুয়ে তবেই বিছানায় উঠুন।

১০) লেপ বা কম্বল অবশ্যই কাভার লাগিয়ে ব্যবহার করা উচিত আর নিয়মিত সেটা বদলেও ফেলা উচিত।

বিছানার একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা আছে আপনার জীবনে ও স্বাস্থ্য। তাই এই ব্যাপারে একটু সচেতনতা খুবই জরুরী।






মন্তব্য চালু নেই