মেইন ম্যেনু

‘নিজ উদ্যোগে সেতু নির্মাণ করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন আজিজ মন্ডল’

শাহ্ আলম শাহী, দিনাজপুর থেকে : নিজ উদ্যোগে সেতু নির্মাণ করে এলাকাবাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ মন্ডল। দিনাজপুর জেলা ফুলবাড়ী উপজেলার ৬নং দৌলতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ মন্ডল। নিজস্ব অর্থ প্রায় ৪২ লাখ ব্যয় করে ছোট যমুনা নদী ব্রীজ নির্মাণ কাজে হাত দিয়েছের। এখন কাজ প্রায় শেষের দিকে। ব্রীজটির দৈর্ঘ্য ১৭১ ফিট। এই নদীটি পলিপাড়া ও হরহরিয়াপড়া গ্রামে অবস্থিত। এই ব্রীজ নির্মাণের ফলে ৫০ হাজার মানুষের যাতায়াত সেতু বন্ধনের পাশাপাশি এলাকার আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ঘটছে। স্বপে¦র দ্বার খুলছে যোগাযোগ ব্যবস্থার। এলাকার অসংখ্য কৃষিজীবী মানুষ তাদের কৃষি পণ্য বাজারজাত করতে পারছেন। সঠিক স্থানে নিয়ে বিপনণ করতে পেরে পাচ্ছেন ন্যায্যমূল্য।

জানা গেেেছ, আব্দুল আজিজ মন্ডল তিনি একজন প্রকৃত সমাজ সেবক সাদা মনের মানুষ। মানুষের দুঃখ দৈন্যদশা তিনি সহ্য করতে পারে না। মানুষের দুঃখ কষ্ট লাঘবের পাশাপাশি চেয়ারম্যান আজিজ মন্ডল নিজের অর্থ দিয়ে ব্রীজ নির্মাণ করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন সবাইকে। তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান, এই ছোট যমুনা নদীতে হাটু পানি উপেক্ষা করে বা নৌকা পাড়ি দিয়ে প্রতিদিন ৫ থেকে ৬ হাজার মানুষ যাতায়াত করে। মানুষের দুঃখ কষ্টের যেন শেষ নেই। কবে হবে ফুলবাড়ি উপজেলার ৬নং দৌলতপুর ইউনিয়নের ছোট যমুনা নদী পলিপাড়া-হরহরিয়াপাড়া গ্রামে একটি ব্রীজ। আব্দুল আজিজ মন্ডল দীর্ঘদিন ধরে তিনি একটি ব্রীজের জন্য বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ সহ দরখাস্ত করেন। কিন্তু সরকারের সাড়া না পাওয়ায় তিনি নিজেই ব্রীজ নির্মাণের কাজ শুরু করেন। তিনি দেখিয়ে দিলেন মানুষের স্বদিচ্ছা ও ইচ্ছাশক্তি এবং ভালো মন-মানুষিকতা থাকলেই যে কোন অসম্ভব কাজকে সম্ভব করা যায়। তিনি বলেন আমার চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত তিনি। আল্লাহ যতদিন আমাকে বাঁচিয়ে রাখবেন আমি মানুষের সেবা করে যাব।

আঃ আজিজ মন্ডল আরো বলেন, ব্রীজ নির্মাণ শেষের দিকে হলেও আমার কাজের পাশাপাশি সরকারি আর্থিক সাহায্য-সহযোগিতা পেলে ব্রীজটি আরও ভালো হত। তিনি বলেন, এখনও সময় ফুরোয়নি। তিনি সরকারের প্রতি আকুল আবেদন জানান ব্রীজটি আরও উন্নত মানের করার জন্য। পাশাপাশি বিত্তশালীরা অর্থ দিয়ে এই ব্রীজটি নির্মাণে সাহায্য সহযোগিতা করার আহবান জানান।






মন্তব্য চালু নেই