মেইন ম্যেনু

নিষ্ঠুর শিক্ষকের কাণ্ড : শিক্ষার্থীকে বেদম মারপিট, হাসপাতালে ভর্তি

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে মনির হোসেন নামের এক নিষ্ঠুর শিক্ষক নবম শ্রেণির ইয়াছিন আরাফাত জীবন (১৪) নামের এক শিক্ষার্থীকে বেদম পিটিয়ে গুরুতর আহত করা অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পরীক্ষা চলাকালীন সময় রামগঞ্জ এম ইউ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়েই আহতের অভিভাবকরা দুপুরে তাকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন।

অভিযুক্তর মনির রামগঞ্জ এম ইউ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

আহতের অভিভাবক ও বিদ্যালয় সুত্রে জানা যায়, শনিবার সকাল ১১টায় পরীক্ষা চলাকালে নবম শ্রেনীর শিক্ষার্থী ইয়াছিন আরাফাত জীবন পিছনে থাকা অন্য করে শিক্ষর্থীর দিকে তাকালে হলে দায়িত্বরত সহকারি শিক্ষক মনির হোসেন তাকে কান ধরে সকল ছাত্র-ছাত্রীদের সামনে এনে স্কেল দিয়ে বেদম মারদর করেন। এসময় সে রক্তাক্ত হলে পরীক্ষা দিতে অপারগতা জানায়। এতে শিক্ষক আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ইয়াছিন আরাফাত জীবনের বুকে লাথি মেরে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় এলোপাতাড়ি পিটিয়ে মারাত্বক গুরুতর আহত করেন স্কুল কক্ষে বসিয়ে রাখে।

পরে অন্য শিক্ষার্থীর কাছ থেকে খবর পেয়ে অভিভাবকরা স্কুলে এসে তাকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে।

শিক্ষার্থীর চাচা সফিকুল ইসলাম জানান, শিক্ষকরা জাতীর বিবেক। আর এই শিক্ষক তার মায়া-দয়া ছেলে পশুরমত একটা ছোট বাচ্চাকে বেধম রেমে গুরুতর আহত করে। এ কোন মানুষের কাজ নয়। আমরা এটার সঠিক বিচার চাই।

রামগঞ্জ এম ইউ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো: আবদুল আজিজ জানান, বিষয়টি অত্যন্ত দু:খজনক। শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ব্যবস্থাপনা কমিটিকে জানানো হয়েছে।

রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ আবু ইউসুফ জানান, ইউপি নির্বাচনী কাজে রায়পুরে দায়িত্ব পালন করছি। রামগঞ্জে এসে অভিযোগ প্রমানিত হলে শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রসাশনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।






মন্তব্য চালু নেই