মেইন ম্যেনু

নেইমাররা কী পারবে ঘুরে দাঁড়াতে!

অলিম্পিক ফুটবলে স্বর্ণ নেই ব্রাজিলের। এবার স্বাগতিক হয়ে সে আক্ষেপ ঘোচানোর লক্ষ্যে নেইমারকে কোপা আমেরিকায় না খেলিয়ে তাকে রাখা হলো অলিম্পিকের জন্য। স্বাগতিকরা যে এই অলিম্পিক স্বর্ণের জন্য কতটা মরিয়া তা নেইমারকে এভাবে রিজার্ভ রেখে দেয়া থেকেই বোঝা যায়।

কিন্তু অলিম্পিক মিশনের শুরুতেই হোঁচট খেতে হলো নেইমারদের। দক্ষিণ আফ্রিকার মত দলের বিপক্ষেই জিততে পারলো না সেলেসাওরা। গোলশূন্য ড্র করতে হলো ব্রাজিলকে। কোয়ার্টার ফাইনালে যেতে হলে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ইরাকের বিপক্ষে জিততেই হবে ব্রাজিলকে।

সেই লক্ষেই বাংলাদেশ সময় সোমবার ভোর ৭টায় ব্রাসিলিয়ার স্টাডিও মানে গ্যারিঞ্চায় মাঠে নামছে ব্রাজিল ফুটবল দল। দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে কোন অংশে সহজ দল হবে না ইরাক। কারণ, এই দলটির মধ্যেও ব্রাজিলিয়ান খেলার ছোঁয়া রয়েছে। কারণ, কিছুদিন আগেও ইরাক জাতীয় ফুটবল দলের কোচ ছিলেন ব্রাজিল কিংবদন্তী জিকো। তার ছোঁয়ায় একবার এশিয়ার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ইরাক।

সুতরাং, রোজারিও মিকেলে এখন সতর্ক আবদুল ঘানি সাহাদের শিষ্যদের নিয়ে। এমনিতেই তিনি আক্রমণাত্মক। যদিও আগের ম্যাচে তার স্ট্র্যাটেজিতে দলের স্ট্রাইকাররা দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে গোল আদায় করতে পারেনি। এবার মিকেলে নিশ্চয়ই নতুন কোন কৌশল বের করবেন, নেইমাররা যাতে গোল বের করতে পারেন। সে সঙ্গে চার ডিফেন্ডার দিয়ে রক্ষণকেও শক্তিশালি করবেন, যাতে ইরাকি আক্রমণ ঠেকানো যায়।

আগের ম্যাচে ডেনমার্কের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছিল ইরাকও। সুতরাং, এই গ্রুপে সবগুলো দলেরই পয়েন্ট সমান ১ করে এবং গোল ব্যবধানেও কেউ এগিয়ে নেই। সুতরাং, এই ম্যাচে এগিয়ে যাওয়ার দারুণ সুযোগ ব্রাজিল কিংবা ইরাকের সামনে। অপরদিকে এই গ্রুপেরই অন্য ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকা আর ডেনমার্ক। বাংলাদেশ সময় ভোর ৪টায় মাঠে নামবে এই দু’দল।






মন্তব্য চালু নেই