মেইন ম্যেনু

নোয়াখালীতে সাংবাদিক আয়াত উল্যা সমাজে ‘উজ্জ্বল নক্ষত্র’

মনিরুজ্জামান পাটোয়ারী, নোয়াখালী থেকে : দেশপ্রেম, সততা ও আন্তরিকতা থাকলে যে কোন পেশা থেকে সমাজসেবা করা যায়। সাংবাদিক আয়াত উল্যা তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ। নোয়াখালীতে আয়াত উল্যা দীর্ঘদিন থেকে সাংবাদিকতায় পেশায় থেকে সমাজসেবায় ভূমিকা রাখার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। তিনি অধিকার বঞ্চিত মানুষকে সব সময় সহযোগিতা করে যাচ্ছে। নোয়াখালী সদর উপজেলার ৬নং নোয়াখালী ইউনিয়নের সোলাঘটিয়া গ্রামের জন চলাচলের অনুপযোগী দিয়ারা ৭৮৫ দাগের রাস্তা। যা দীর্ঘ ৪০ বছর মানুষ রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করতে পারেনি। বিষয়টি ঐ এলাকার জনগণ সাংবাদিক আয়াত উল্যার নজর দিলে, সে রাস্তাটি সাংবাদিক আয়াত উল্যার উদ্যোগে জনগণের সহযোগিতা নিয়ে পরিমাপ করিয়া মাটি ভরাট করে জনসাধারণের চলাচলের উপযোগী করেন। যে সব ছাত্র/ছাত্রী অর্থের অভাবে স্কুল/ মাদ্রাসায় শিক্ষা নিতে পারছে না। এ বিষয়ে সাংবাদিক আয়াত উল্যাকে কেউ অবহিত করছে। তৎক্ষানাৎ সাংবাদিক আয়াত উল্যা তাদেরকে সহযোগিতা করে তাদেরকে স্কুল/মাদ্রাসা মুখী করেন। এছাড়া কিছু মুমূর্ষু রোগীকে সাংবাদিক আয়াত উল্যা নিজের রক্ত দিয়ে জীবন রক্ষা করার চেষ্টা করেন। যখনই কারো বিপদের কথা শুনছেন তখনই তিনি তাদের সাহায্য করার জন্য সেখানে ছুটে যান। তার ক্ষুরধার লেখনীর কারনে নোয়াখালী জেলার অনেক সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ীর, জেল, জরিমানা হয়েছে। অনেক এলাকা সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ এবং মাদক মুক্ত হয়েছে। সদর উপজেলার ছোট রামদেবপুর গ্রামের ইসমাইল হোসেন নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে যখন সাংবাদিক আয়াত উল্যা বুঝাতে সক্ষম হয়েছে যে, মাদকের কুফল সম্পর্কে? সে এখন মাদক ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে কাঁচামালের আড়ৎ এর ব্যবসা করে। তিনি তার লেখনীর ক্ষেত্রে পেশাকে গুরুত্ব দিয়ে কোন সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ীকে পাত্তা না দিয়ে তাদের বিরুদ্ধে লিখে যান। এক সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, দেশপ্রেমের মানসিকতা নিয়ে তিনি সাংবাদিকতা পেশায় থেকে অধিকার বঞ্চিত মানুষের কল্যাণে সেবা অব্যাহত রাখবেন। তিনি সকলের দোয়া প্রার্থী।






মন্তব্য চালু নেই