মেইন ম্যেনু

নোয়াখালীর চাটখিলে গ্যাসের দালাল মানিক গণ ধোলাইয়ের শিকার

আধুনিক জীবন যাত্রায় গ্যাস মানুষের মৌলিক চাহিদার অন্যতম বস্তুতে পরিনত হয়েছে। তাই মানুষ গ্যাস সংযোগ পাওয়ার জন্যে মরিয়া হয়ে উঠেছে। আর মানুষের আকাঙ্খা দেখে এক শ্রেণীর দালাল টাউট পাটপার নিরীহ মানুষকে ধোকা দিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। নোয়াখালীর চাটখিলে মানিক নামে এক গ্যাসের দালালের খপ্পরে পড়ে মানুষ দিশেহারা, তাই ক্ষিপ্ত জনতার হাতে দফায়-দফায় মানিক গন ধোলাইয়ের শিকার হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় উপজেলার দশানী টবগা গ্রামের পুরান বাড়ীর মৃত আবদুছ ছাত্তারের ছেলে মানিক হোসেন প্রকাশ হেডম মানিক, রাজমিস্ত্রীর সহযোগী হিসেবে এক সময় কাজ করতো তার ভাষা ব্যবহার খারাপের কারণে কেউ তাকে কাজ দিতোনা, তাই মধ্যপ্রাচ্যে চলে যায়, সেখানে গিয়েও তেমন সুবিধা করতে না পেরে দেশে ফিরে এসে গ্যাস সংযোগের দালালী শুরু করে। বিভিন্ন বাড়িতে তার সহযোগী দালালও আছে তারা মানিকের মাধ্যমে সহজে গ্যাস সংযোগ পাওয়া যাবে বলে প্রলোভন দিয়ে বাড়ীর মানুষকে জিম্মী করে, জায়গা জমির দাগ খতিয়ান টাকা পয়সা হাতিয়ে নিয়ে, বছরের পর বছর গ্যাস সংযোগ দেয়না।

জানা যায় মানিকের সহযোগী দালালরা স্বল্প খরছে সংযোগ পায়, উপরন্ত তাদেরকে অবৈধ টাকার ভাগও দেওয়া হয়। গ্যাস সংযোগের অগ্রগতি সম্পর্কে কোন আবেদনকারী জানতে চাইলে মানিক অত্যন্তরুঢ় ভাবে অশুদ্ধ হিন্দি উর্দ্ধ এবং ইংরেজীতে কথা বলে। ভূক্ত ভোগীরা জানান গ্যাস সংযোগ প্রদান করতে দালাল মানিক নানাহ প্রতারনার ফাঁদ পেতে মেইন লাইন থেকে সংযোগস্থল একটু দূরে হলে গ্রাহক মোটা অংকের নগদ টাকা দিয়ে পাইপ কিনতে হয়। সেখানে আরেক প্রতারনা, মোট পাইপের টাকা নিয়ে চিকন পাইপ দিয়ে সংযোগ প্রদান করে।

ফলে দেখা যায় ঠিকমত গ্যাস সাপ্লাই হয়না। প্রায় সময় বাসা বাড়িতে ১০/১৫ ঘন্টা রান্না-বান্নার কাজ বন্ধ থাকে। চাটখিল পৌরসভার দক্ষিনাঞ্চলে চিকন পাইপের কারনে গ্যাস সরবরাহ প্রতিনিয়ত ব্যাহত হচ্ছে। মানিকের অত্যাচারে ভূক্তভূগীদের মধ্যে সুন্দরপুরের মাহিন,মনির রাশেদ, হুমায়ন, নুরনবী, রবিউল জানান, অশুভ সিন্ডিকেটের মাধ্যমে মানিক আমাদেরকে জিম্মি করে, তাই যেখানে মাত্র ১০/১৫ হাজার টাকার গ্যাস সংযোগ পাওয়া যেত সেখানে মানিক নানাহ তালবাহানা করে প্রায় ১ লাখ টাকা আদায় করে, তারপরও বছরের পর বছর গ্যাস সংযোগ পাওয়ার জন্যে অপেক্ষা করতে হয়।

আবেদন মোতাবেক বাখরাবাদ গ্যাস কতৃপক্ষ থেকে রাইজার অনুমোদন হয়ে আসার পর মানিক এক গ্রাহকের অগোচরে আরেক গ্রাহককে বলে আপনার জন্যে বিশেষ বরাদ্ধে এই রাইজার এনেছি, তাই আপনাকে ত্রিশ হাজার টাকা দিতে হবে, না হলে এই রাইজার অন্য কাউকে দিয়ে দেওয়া হবে। অগত্যা মানুষ গ্যাস সংযোগ না পাওয়ার ভয়ে প্রতারক দালাল মানিককে টাকা দিয়ে দেয়।

এহেন প্রতারনার কারনে ক্ষিপ্ত জনতার হাতে মানিক দফায়-দফায় গণ ধোলাইয়ের শিকার হয়। এলাকাবাসি জানান সামান্য লেখা পড়া জানা মানিক সব সময় মানুষের সাথে খারাপ আচরন করে। যখন যে দল ক্ষমতায় আসে সে দলে যোগ দিয়ে অবৈধ কাজকর্ম অব্যাহত রাখে। মানিকের অত্যাচার থেকে বাঁচার জন্যে ভূক্তভোগী মানুষ আইন শৃংখলা বাহিনী ও গ্যাস সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।






মন্তব্য চালু নেই