মেইন ম্যেনু

পদ্মায় পানি কমছে

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ সরকার গঙ্গা নদীর ওপর নির্মিত ফারাক্কা বাঁধের গেট খুলে দেয়ার নির্দেশ দেয়ার পর বাংলাদেশে পদ্মায় পানি বাড়লেও এখন ধীরে ধীরে কমে আসছে। পাবনায় হার্ডিঞ্জ ব্রিজ এলাকায় গত তিন দিন ধরেই পানি কমছে।

গঙ্গার পানিবণ্টন চুক্তি অনুযায়ী ফারাক্কা পয়েন্ট ও পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পানি পরিমাপ করা হয়। গত ২৩ আগস্ট থেকে চারদিন পানি বাড়তে বাড়তে একেবারে বিপদসীমা ছুঁইছুঁই অবস্থানে চলে আসে। তবে তা তখনও বিদসমীমা ১৪ দশমিক ২৫ মিটার অতিক্রম করেনি।

আর পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য মতে গত ২৭ আগস্ট থেকে পানি ক্রমাগত কমতে থাকে। বোর্ডের উত্তরাঞ্চলের পানি পরিমাপ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী সোমবার সকালে হার্ডিঞ্জ ব্রিজ এলাকায় পদ্মার পানি ছিল ১৪ দশমিক ১১ মিটার। আগের দিন এই পানি ছিল ১৪ দশমিক ১৪ মিটার। অর্থাৎ এক দিনে পানি কমেছে তিন সেন্টিমিটার।

শনিবার এই এলাকায় পানি মাপা হয় ১৪ দশমিক ১৯ মিটার। অর্থাৎ গত দুই দিনে পদ্মায় পানি কমেছে আট সেন্টিমিটার।

তবে নদীতে পানি কমলেও পদ্মায় তীব্র রয়ে গেছে। ঈশ্বরদী উপজেলার মোল্লারচর, সাহেব নগর, গোলাপনগরে চরাঞ্চল থেকে পানি এখনও নেমে যায়নি।

ঈশ্বরদী উপজেলায় পদ্মা তীরবর্তী সাড়া ইউনিয়নের সাড়া, বড়মাঝদিয়া, ছোটমাজদিয়া, ইসলামপুর এলাকায় নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন আতঙ্কে এলাকা থেকে মানুষ ঘরবাড়ি খুলে নিয়ে নিরাপদ স্থানে নেয়ার চেষ্টা করছে।

পানি যখন বাড়ছিল তখন পানি উন্নয়ন বোর্ড এ নিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছিল। বোর্ড বলছে, পদ্মায় পানি বাড়লেও দেশের অন্যতম প্রধান নদী যমুনা এখন বিপদসীমার নীচে। আর এ কারণে পদ্মার পানি দ্রুত বঙ্গোপসাগরে চলে যাবে।

ভারতের বিহার রাজ্যে বন্যা মোকাবেলায় সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গ সরকার ফারাক্কা বাঁধের সবগুলো গেট খুলে দেয়ার নির্দেশ দেয়। এরপরই পদ্মায় পানি প্রবাহ বেড়ে যায়। আর বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নিতীশ কুমার কেন্দ্রীয় সরকারের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করে ফারাক্কা বাঁধ পুরোপুরি তুলে দেয়ার অনুরোধ করেছেন।






মন্তব্য চালু নেই