মেইন ম্যেনু

পরকীয়ার কারণে ২ মাসের শিশুকে হত্যা করল ‘মা’!

মায়ের পরকীয়ার বলি হলো ২ মাসের এক অবুঝ শিশু। সাতক্ষীরা উপজেলার আশাশুনি উপজেলার প্রতাবনগর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে। ওই পাষণ্ড নারীকে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার কাঁচপুর চেঙ্গাইন এলাকা থেকে মঙ্গলবার গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

সোনারগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নারায়ণ চন্দ্র দাস জানান, সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি উপজেলার প্রতাবনগর গ্রামের আনছার হাওলাদার মিলন মিয়া সঙ্গে একই উপজেলার আনুলিয়া গ্রামের নুরুল ইসলামের মেয়ে সেলিনা আক্তারের ৬ বছর আগে বিয়ে হয়।

বিয়ের পর তাদের সংসারে পাঁচ বছরের মেয়ে মরিয়ম আক্তার ও দুই মাসের শিশু সন্তান মনিরা আক্তার জন্ম নেয়। গত এক বছর পূর্বে প্রতাবনগর গ্রামের হবি হাওলাদারের ছেলে হুমায়ুন হাওলাদারের সঙ্গে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে ওই গৃহবধূ।

এ নিয়ে তাদের সংসারে কয়েক বার কলহ দেখা দেয়। গত ৩ এপ্রিল গৃহবধূ তার দুই মাসের শিশু সন্তান মনিরা আক্তারকে গলা টিপে হত্যা করে তার প্রেমিকের সঙ্গে পালিয়ে যায়। পরে ওই দিনই প্রতিবেশী মনির হোসেনের পুকুর থেকে ভাসমান অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশ ময়নাতদন্তের পর ২৯ এপ্রিল গৃহবধূর স্বামী মিলন মিয়া ওরফে খোকন মিয়া বাদী হয়ে সেলিনা আক্তার, হুমায়ুন মিয়া, হালিমা খাতুন, রজ্জব আলীকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এসআই আরো জানান, হত্যাকাণ্ডের পর থেকে আসামিরা উপজেলার কাঁচপুর এলাকায় এসে আত্মগোপন করেছে। সেখান থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কাঁচপুর চেঙ্গাইন এলাকার জহির মাস্টারের বাড়ি থেকে সেলিনা আক্তারকে গ্রেফতার করা হয়। অপর আসামি হুমায়ুন হাওলাদার পলাতক রয়েছে।

থানা হাজতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সেলিনা আক্তার জানান, আমার স্বামীর অত্যাচার ও নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে আমার শিশু সন্তানকে হত্যা করতে বাধ্য হই।

মামলার বাদী মিলন মিয়া ওরফে খোকন মিয়া মুঠোফোনে জানান, হুমায়ুন হাওলাদারের সঙ্গে আমার স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমের কারণেই আমার দুই মাসের অবুঝ শিশুকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই