মেইন ম্যেনু

মুসলিম ও হিন্দুদের প্রতি মোদি

পরস্পরের সঙ্গে না লড়ে দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে লড়ুন

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি গরুর মাংস খাওয়া নিয়ে সহিংসতা ও বিতর্ক নিয়ে নীরবতা ভেঙে গতকাল বৃহস্পতিবার মুখ খুলেছেন। তিনি এক সমাবেশে বলেছেন, হিন্দু ও মুসলিমদের উচিত পরস্পরের সঙ্গে না লড়ে দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে লড়া।

গরুর মাংস দিয়ে ভোজের আয়োজন করায় জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যে গতকালই বিধানসভার অধিবেশনে বিজেপির বিধায়কেরা স্বতন্ত্র এক বিধায়ককে পিটিয়েছেন। খবর বিবিসি, এনডিটিভি ও টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

বিহারের রাজ্যসভার নির্বাচন সামনে রেখে গতকাল রাজ্যের মুঙ্গের ও বেগুসারাইয়ে দুটি সমাবেশে ভাষণ দেন নরেন্দ্র মোদি। তিনি স্থানীয় নেতা লালু প্রসাদের গরুর মাংস নিয়ে করা মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেন। মোদি জনগণকে ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন’ মন্তব্য উপেক্ষা করে একত্রে কাজ করারও পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, ‘মুসলিমদের ঠিক করতে হবে তারা হিন্দু না দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে লড়াই করবে। তেমনি হিন্দুদেরও সিদ্ধান্ত নিতে হবে তারা মুসলিম না দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে লড়বে।…উভয়ের উচিত একত্রে দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে লড়াই করা। দেশকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।’

‘হিন্দুরাও গরুর মাংস খায়’—লালু প্রসাদ যাদবের এ মন্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে মোদি বলেন, ওই মন্তব্যের মাধ্যমে তিনি যাদব সম্প্রদায়কে অপমান করেছেন। মোদি বলেন, ‘শয়তান মানব শরীরে প্রবেশ করেছে। লালুজি, এই যাদব সম্প্রদায়ই আপনাকে ক্ষমতায় আসতে সাহায্য করেছিল। যাদবেরা সবাই কি খায়? এটা কি যাদব সম্প্রদায় ও বিহারের জন্য অপমান নয়?’

উত্তর প্রদেশের দাদরি এলাকার বিসাদা গ্রামে গত ২৮ সেপ্টেম্বর গরুর মাংস খাওয়ার গুজবকে কেন্দ্র করে শতাধিক লোকের হামলায় নিহত হন ৫০ বছর বয়সী মোহাম্মদ ইকলাখ। তাঁর ছেলেও এ সময় আহত হয়।
নরেন্দ্র মোদি দাদরির ঘটনাকে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘আমরা এ নিয়ে রাজনীতি করতে দিতে পারি না।’
গত বুধবার রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি বলেন, ভারতীয় সভ্যতার আসল মূল্যবোধ সহনশীলতা, বৈচিত্র্য ও বহুত্বকে কোনোভাবেই নষ্ট হতে দেওয়া যাবে না।

গতকাল সকালে জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যে বিধানসভার অধিবেশন শুরু হওয়ার আগে গগন ভগত, রাজীব শর্মা, রবীন্দর রায়না ও বিজেপির আরও দুজন বিধায়ক স্বতন্ত্র বিধায়ক প্রকৌশলী রশিদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তাঁকে পেটাতে থাকেন। বিরোধী দলের বিধায়কদের হস্তক্ষেপে রশিদ রেহাই পান। আগের দিন বুধবার রশিদ গরুর মাংস দিয়ে ভোজের আয়োজন করেন—এ অভিযোগে তাঁকে পেটানো হয়। এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মুফতি মোহাম্মদ সায়ীদ বলেন, ‘আপনি একজন বিধায়ককে মারধর করতে পারেন না।’ তিনি এ ঘটনায় উপমুখ্যমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা নির্মল সিংকে ‘ভুল স্বীকার’ করতে বলেন

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গরুর মাংস নিয়ে গুজব ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় জম্মুতে ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে সেখানকার পুলিশ জানায়।






মন্তব্য চালু নেই