মেইন ম্যেনু

পরিবর্তনের মূল কারিগর শেখ হাসিনা : ওবায়দুল কাদের

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাংলাদেশের রাজনীতিতে শেখ হাসিনার সমকক্ষ আর কেউ নেই। তিনি তাঁর যোগ্যতা, বুদ্ধিদীপ্ততা, বিচক্ষণতার মাধ্যমে বয়োজ্যেষ্ঠ রাজনীতিবিদদেরও হার মানিয়েছেন।

আজ বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলী সদস্য ওবায়দুল কাদের এ কথা বলেন। বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের দলীয় কার্যালয়ে এ আলোচনা সভার আয়োজন করে আওয়ামী যুবলীগ। যুবলীগের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়।

আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘বাংলাদেশের পরিবর্তনের মূল কারিগর শেখ হাসিনা।’

অনুষ্ঠানে ‘সময়রেখায় রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন ওবায়দুল কাদের। যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর সম্পাদনায় বইটি প্রকাশিত হয়।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনার জীবনভিত্তিক সংবাদচিত্র প্রদর্শনী, শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু ও সুস্থতা কামনা করে দোয়া করা হয়। অনুষ্ঠানে সদ্যপ্রয়াত সব্যসাচী লেখক ও কবি সৈয়দ শামসুল হকের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া করা হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘শেখ হাসিনাকে রাষ্ট্রনায়ক উপাধিতে যারা হাসি-ঠাট্টা করেছিল, তারাই আজ হাসি-ঠাট্টার বিষয়ে পরিণত হয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘বিশ্বে আজ বাংলাদেশ পরিচিত হয়েছে শেখ হাসিনার জন্য।’

আলোচনা সভায় যুবলীগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, ‘রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা আমাকে শিখিয়েছেন, বুঝিয়েছেন, একটি রাজনৈতিক সংগঠনের তিনটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ- গবেষণা, গ্রন্থনা ও অনুবাদ। আজ বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী সারা বিশ্বের বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ হচ্ছে। কিন্তু এ সব কাজে আমরা তেমন নজর দিচ্ছি না। আমরা একই সঙ্গে বর্তমান ও ভবিষ্যতের মানুষ। বর্তমানকে সমৃদ্ধ করার মাধ্যমে ভবিষ্যৎকে গড়ে তুলতে হবে।’

ওমর ফারুক আরো বলেন, ‘বাংলার সাহিত্যের প্রবাদপ্রতিম এক পুরুষ সব্যসাচী লেখক ও কবি সৈয়দ শামসুল হক বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। এই শিল্পীর জীবনের পরিসমাপ্তি আমাদের শিল্প-সাহিত্যের জন্য এক বিরাট ক্ষতি। কৃতজ্ঞ ও বেদনাচিত্তে আমরা তাঁকে বিদায় অভিবাদন জানাই।’

মিলাদ মাহফিল শেষে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ মো. হারুনুর রশীদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য শহীদ সেরনিয়াবাত, মজিবুর রহমান চৌধুরী, মো. ফারুক হোসেন, মাহবুবুর রহমান হিরণ, আবদুস সাত্তার মাসুদ, আতাউর রহমান, ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিল, দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট, উত্তরের সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, দক্ষিণের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা। সভা পরিচালনা করেন যৌথভাবে যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম শাহীন, সুব্রত পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহা. বদিউল আলম, এমরান হোসেন খান, আসাদুল হক আসাদ, ফারুক হাসান তুহিন, দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমান।






মন্তব্য চালু নেই