মেইন ম্যেনু

পরীক্ষা-নিরীক্ষার ম্যাচে বাংলাদেশের হার

লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৮৮। বড় লক্ষ্যমাত্রা সামনে রেখে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারেই ফিরে গিয়েছিলেন ইমরুল কায়েস। তারপর সৌম্য সরকার ও সাব্বির রহমান ঝড়োয়া ব্যাট চালিয়ে খানিকটা আশা জাগিয়েছিলেন। কিন্তু সেটি দীর্ঘস্থায়ী হয়নি।

ব্যক্তিগত ২৫ রান করে ফেরেন সৌম্য। তারপর একের পর এক উইকেট পতন। সাব্বির রহমান ৫০ রান করে আউট হলেও আর কেউ দলের হাল ধরতে পারল না। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৫৬ রানে থামল বাংলাদেশের ইনিংস। ফলে, ৩১ রানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হল বাংলাদেশকে। তারপরও চার ম্যাচ সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে মাশরাফিরা।

এদিন বাংলাদেশের পক্ষে ইমরুল কায়েস ১, সৌম্য সরকার ২৫, সাব্বির রহমান ৫০, মোসাদ্দেক হোসেন ১৫, সাকিব আল হাসান ৩, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ৬, মুক্তার আলী ১৯*, নুরুল হাসান ৩০* রান করেন। জিম্বাবুয়ের পক্ষে গ্রায়েম ক্রেমার ৩টি, সিকান্দার রাজা ২টি ও টেন্ডাই চিসোরো ১টি করে উইকেট নেন।

ইনিংসের প্রথম ওভারের শেষ বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন ইমরুল কায়েস। অষ্টম ওভারে গ্রায়েম ক্রেমার বল তুলে মারতে গিয়ে হ্যামিলটন মাসাকাদজার হাতে ক্যাচে পরিণত হন সৌম্য সরকার।

১২তম ওভারে সিকান্দার রাজার বল তুলে মারতে গিয়ে সীমানার কাছে মুজারাবানির হাতে ধরা পড়েন সাব্বির রহমান। ১৪তম ওভারে সিকান্দার রাজার বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন মোসাদ্দেক হোসেন। ১৫তম ওভারে সাকিব আল হাসানকে ফিরিয়ে দেন গ্রায়েম ক্রেমার। একই ওভারে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকেও ফেরান ক্রেমার।

বুধবার খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮৭ রান করে জিম্বাবুয়ে।

সফরকারীদের পক্ষে হ্যামিলটন মাসাকাদজা ২০, ভুসি সিবান্দা ৪৪, রিচমন্ড মুতুম্বামি ২০, সেন উইলিয়ামস ৩২, ম্যালকম ওয়ালার ৪৯, সিকান্দার রাজা ৭ ও পিটার মুর ১০* রান করেন। বাংলাদেশের পক্ষে সাকিব আল হাসান ৩টি, আবু হায়দার রনি ২টি ও মোহাম্মদ শহীদ ১টি করে উইকেট নেন।

এদিন চারজন নতুন খেলোয়াড়কে নিয়ে খেলতে নামে বাংলাদেশ। অভিষেক হয়েছে আবু হায়দার রনি, মুক্তার আলী, মোহাম্মদ শহীদ ও মোসাদ্দেক হোসেনের। তামিমের জায়গায় মাঠে নামানো হয় ইমরুল কায়েসকে।

এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে সামনে রেখে ভাল একটি কম্বিনেশন খোঁজার আশায় এই সিরিজকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার সিরিজ হিসেবে নিয়েছে বাংলাদেশ। ফলে, তরুণ ক্রিকেটারদের নানাভাবে দেখে নেয়া হচ্ছে।






মন্তব্য চালু নেই