মেইন ম্যেনু

পাঁচদিন ঘুমাতে পারেননি ওয়াহাব রিয়াজ

দুঃসহ যন্ত্রণা নিয়ে ৫ দিন ঘুমাতে পারেননি ওয়াহাব রিয়াজ। রাতে ঘুমাতে গেলেই চোখের সামনে ভেসে উঠতো নটিংহ্যামের একটি দুঃসহ স্মৃতি। এমনটাই জানালেন পাকিস্তানের এ বাঁ-হাতি পেসার।

নটিংহ্যামে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডে খেলতে নামে পাকিস্তান। ওই ম্যাচে পাকিস্তানের বোলারদের পিটিয়ে ছাতু বানিয়ে ফেলে ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। ৩ উইকেটে তোলে ৪৪৪ রান। ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রানের নয়া রেকর্ড গড়ে ইংল্যান্ড। ওই ম্যাচে ১০ ওভারে ১১০ রান দেন পাকিস্তানের পেসার ওয়াহাব রিয়াজ।

পাকিস্তানের কোনো বোলারদের প্রথম এক শ’ রান দেয়ার ঘটনা এটি। ওই ঘটনার পর চার-পাঁচদিন ঘুমাতে পারেননি

বলে জানালেন ওয়াহাব রিয়াজ। ‘এক্সপ্রেস ট্রিবিউন’কে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘ওই ম্যাচের পর আমি চার-পাঁচ দিন ঘুমাতে পারিনি। ঘুমাতে গেলেই ‘ধ্বংসাত্মক’ ওই ঘটনা চোখের সামনে ভেসে উঠতো। আমি রান হজম করাকে কখনো ভয় পাই না।

তবে এই ম্যাচটি সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম ছিল। আমার মাথা থেকে কোনোভাবে সেটা যাচ্ছিল না।’ ওই ম্যাচের পর শেষের দুই ওয়ানডেতে খেলেননি ওয়াহাব। এ সময় তিনি ভেঙে পড়েছিলেন বলে জানালেন। তবে বোলিং কোচ আজহার মাহমুদ তাকে স্বাভাবিক হতে সাহায্য করেছে বলে জানালেন।

ওয়াহাব বলেন, ‘আমাকে স্বাভাবিক করার কৃতিত্ব পুরোটাই বোলিং কোচ আজহার মাহমুদের। তিনি সব সময় আমাকে সাহায্য করেছেন। আমার সঙ্গে থাকতেন সবসময়। শেষ দুই ম্যাচে আমি দলে ছিলাম না। এ সময় তিনি আমাকে দারুণ সাহায্য করেন।’

ওয়ানডে সিরিজ হারলেও একমাত্র টি-টোয়েন্টিতে ইংল্যান্ডকে উড়িয়ে দেয় পাকিস্তান। ওই ম্যাচে ক্যারিয়ার সেরা ৩/১৮ বোলিং করেন ওয়াহাব। ম্যাচসেরা খেলোয়াড়ও নির্বাচিত হন তিনি। ইংল্যান্ড সফরে শেষটা ভাল করতে পেরে খুশি তিনি।

বলেন, ‘নটিংহ্যামে আমি এবং দলের সবার জন্য ছিল দু:স্বপ্ন। তবে ম্যানচেস্টারে (টি-টোয়েন্টি) আবার গর্জন দিয়ে জয়ে ফিরে আমরা খুশি।’ ইংল্যান্ড সফরে চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ২-২ এ ড্র করার পর পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ৪-১ এ হারে পাকিস্তান। তবে একমাত্র টি-টোয়েন্টি জেতে ৯ উইকেটে।-এমজমিন






মন্তব্য চালু নেই