মেইন ম্যেনু

পাঁচ বছর পর ফিরছেন ঐশ্বর্য

বলিউডে নিজেকে ফের প্রতিষ্ঠা করার লড়াই শুরু করলেন ঐশ্বর্য রাই বচ্চন। ‘জ্যযবা’ ছবির হাত ধরে দীর্ঘ পাঁচ বছর পর বড় পর্দায় ফিরছেন বচ্চন পরিবারের পুত্রবধূ। সম্প্রতি কান চলচ্চিত্র উৎসবে ঘটা করে উদ্বোধন হয়ে গেল ছবিটির প্রথম লুক। পরিচালক সঞ্জয় গুপ্তের ‘জ্যযবা’ছবিতে ঐশ্বর্য বাস্তব জীবনের মতো রিল লাইফেও একজন মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। যে মা তাঁর অপহৃত সন্তানকে ফেরাতে জীবন বাজি রেখে লড়াই করবেন। সফল হবেন না ব্যর্থ সেটা পরের প্রশ্ন। ৪১ বছরের এই অভিনেত্রীকে রোমান্টিক চরিত্রে দর্শকরা আর নেবেন কি না সেটাও একটা বড় প্রশ্ন। তবে সম্পূর্ণ নারী কেন্দ্রিক ‘জ্যযবা’ছবির হাত ধরে বলিউডের বুকে নিজের আসন পুনরায় পাকা করতে এখন পুরোদস্তুর তৈরি ঐশ্বর্য।

২০১০ সালে ‘রাবন’, ‘সরকার রাজ’, ‘অ্যাকশন রিপ্লে’ ও ‘গুজারিশ’ছবিগুলো পরপর ফ্লপ হয়ে যায় ঐশ্বর্যের। ফিল্ম বিশেষজ্ঞরা সেই সময় বলেই দিয়েছিলেন, ঐশ্বর্য রাই বচ্চনের ফিল্মি জীবন শেষ। এবার তাঁর গুছিয়ে সংসার করা উচিত।

তারপর থেকে কেটে গেছে দীর্ঘ পাঁচ বছর। পরিবার এবং সন্তান এই দুটো সামলাতেই পাঁচ বছর সময় নেন তিনি। ইতিমধ্যেই তাঁর কোলজুড়ে আসে আরাধ্যা নামের ফুটফুটে কন্যা সন্তান। এই পাঁচ বছরে অনেক পরিবর্তন ঘটে গেছে বলিউডে। একদিকে যেমন অনেক নতুন নায়িকার আবির্ভাব ঘটেছে, তেমনি অনেকের বিদায়ও ঘটে গেছে। তবে অন্যদের থেকে কিছুটা হলেও ব্যতিক্রমী ঐশ্বর্য। তাঁর নামের শেষে জুড়ে গেছে বলিউডের ফ্যামিলি নম্বর ওয়ানের পদবি ‘বচ্চন’। আর ‘বচ্চন’পরিবারে যেটা ঘটে সেটাই খবর। তার ওপর তিনি প্রাক্তন বিশ্ব সুন্দরী। বলিউডের প্রাক্তন নম্বর ওয়ান নায়িকাও। প্রতি বছর নিয়ম করে কান চলচ্চিত্র উৎসবে লাল কার্পেটে হেঁটেছেন। খবরে থেকেছেন নিয়ম করেই। ফলে পাঁচ বছর বাদে বলিউডে কাম ব্যাক করার আগে যথেষ্ঠই আশাবাদী তিনি। ফিল্ম বোদ্ধাদের মতে, কাম ব্যাক ছবি হিসেবে ‘জ্যযবা’-কে বেছে নিয়ে বুদ্ধির পরিচয় দিয়েছেন ঐশ্বর্য রাই বচ্চন।

এর আগে অবশ্য এই ধরনের সাফল্যের পরীক্ষায় ব্যর্থ হয়েছেন মাধুরী দীক্ষিত। ‘দেবদাস’ ছবির পর সংসার সামলাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন তিনি। ঠিক পাঁচ বছর পর মাধুরী দীক্ষিতের কাম ব্যাক ছবি ‘আ যা নাচলে’মুখ থুবড়ে পড়েছিল বক্স অফিসে। তারপর একাধিক চেষ্টা করেও আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেননি তিনি। এবারে ফের সেই পাঁচ বছরের ব্যবধানে বলিউডে কাম ব্যাক করতে চলেছেন ঐশ্বর্য রাই বচ্চন। ‘জ্যযবা’-র হাত ধরে সাফল্য না চূড়ান্ত ফ্লপ তাঁর ভাগ্যে অপেক্ষা করছে তার উত্তর দেবে একমাত্র সময়।






মন্তব্য চালু নেই