মেইন ম্যেনু

পাওয়া গেছে ৮০০ বছর আগের মোবাইল!

মোটা চশমাধারী কোনো ব্যক্তি যদি গম্ভীরমুখে আপনাকে বলে, ৮০০ বছর আগেও পৃথিবীতে মুঠোফোন ছিল, তখন কী ভাববেন আপনি? হয় হেসেই উড়িয়ে দেবেন, নয় ভাববেন, লোকটার মাথা খারাপ হয়ে গেল না কি। যা-ই ভাবুন, প্রত্নতাত্ত্বিকরা এমনই একটি মুঠোফোন আবিষ্কার করেছেন, যেটির বয়স আটশো বছরের বেশি।

সম্প্রতি খননকার্য চালাতে গিয়ে অস্ট্রিয়া থেকে এই মুঠোফোনের খোঁজ পেয়েছেন প্রত্নতাত্ত্বিকরা। মুঠোফোনটির গায়ে রয়েছে সুমেরীয় লিখনশৈলী, যা কীলকাকার বর্ণমালা নামে পরিচিত।

একটি ইউটিউব চ্যানেলে সদ্য আবিষ্কৃত প্রাচীন সেই ফোনের ফসিলের ভিডিও আপলোড করে লেখা হয়েছে, ‘এটা কী? উন্নত সভ্যতার নিদর্শন?’ এই আবিষ্কারের দৌলতে সায়েন্স ফিকশনের টাইম মেশিনকেও সত্য বলেই মনে করা হচ্ছে।

ফোনের গায়ের সুমেরীয় লেখা প্রত্নতাত্ত্বিকদের কৌতূহল বাড়িয়েছে। কারণ, অনেক বছর আগেই কীলকাকার এই বর্ণমালা অবলুপ্ত হয়ে যায়। প্রাচীন মেসোপটেমিয়ায় এই হরফ দেখা গিয়েছিল।

অস্ট্রিয়ার গবেষকদের ধারণা, ফোনটি ১৩০০ শতকের। বর্তমান ইরান ও ইরাকের লিপির সঙ্গে তারা অনেকও মিলও খুঁজে পেয়েছেন। তবে এটি মোবাইল ফোনই, না কি অন্য কোনো ডিভাইস, তা নিয়ে অবশ্য ধোঁয়াশাই রয়ে গেছে গবেষকদের মধ্যে।

এই নিয়ে হইচই করছেন ইউএফও (আন-আইডেন্টিফাইড ফ্লাই অবজেক্ট) খোঁজকারীরাও, যারা মনে করেন প্রাচীন সভ্যতার সঙ্গে এলিয়েনদের যোগাযোগ ছিল। ভিনগ্রহের বাসিন্দারা এই পৃথিবীতেও আসত। তাদের হাতে ছিল এই প্রযুক্তি। হয়ত নিদর্শন হিসেবে তারা রেখে গেছেন পৃথিবীবাসীর জন্য।






মন্তব্য চালু নেই