মেইন ম্যেনু

পাকিস্তানকে হারিয়ে শ্রীলঙ্কার সিরিজ সমতা

জয়ের মঞ্চটা আগের দিনেই তৈরি হয়েছিল। আজ শুধু আনুষ্ঠানিকতাটা সেরে নিল শ্রীলঙ্কা। কলম্বো টেস্টে পাকিস্তানকে সহজেই ৭ উইকেটে হারিয়েছে লঙ্কানরা।

এই জয়ে তিন ম্যাচ সিরিজে ১-১ সমতা ফেরাল শ্রীলঙ্কা। গলে সিরিজের প্রথম টেস্টে ১০ উইকেটে জিতেছিল পাকিস্তান। আগামী ৩ জুলাই থেকে পাল্লেকেল্লেতে শুরু হবে সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় ও শেষ টেস্ট।

কলম্বো টেস্টে ১৩৮ রানে প্রথম ইনিংস গুটিয়ে যাওয়া পাকিস্তান চতুর্থ দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ৩২৯ রানে অলআউট হয়। ফলে প্রথম ইনিংসে ৩১৫ রান করা শ্রীলঙ্কার লক্ষ্য দাঁড়ায় ১৫৩ রান।

সোমবার শেষ দিনে জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নামে শ্রীলঙ্কা। দিমুথ করুণারত্নে ও কিথুরুয়ান ভিথানেগে মিলে ৪৯ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েন। ৩৪ রান করে জুলফিকার বাবরের বলে মোহাম্মদ হাফিজের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ভিথানেগে।

এরপর নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিজে আসে ‘গোল্ডেন ডাক’ মারেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানানোর অপেক্ষায় থাকা কুমার সাঙ্গাকারা। ইয়াসির শাহর বলে আহজার আলীর ক্যাচে পরিণত হন এই বাঁহাতি।

এই সিরিজের তৃতীয় টেস্টে খেলবেন না সাঙ্গাকারা। পাকিস্তানের বিপক্ষে তাই এটাই ছিল তার শেষ ম্যাচ। আগামী আগস্টে ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের দুটি টেস্ট খেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলবেন শ্রীলঙ্কার অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান।

সাঙ্গাকারার বিদায়ের পর করুণারত্নের সঙ্গে ৭২ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। ফিফটি করে ব্যক্তিগত ৫০ রানেই বিদায় নেন করুণারত্নে। তবে লাহিরু থিরিমান্নের সঙ্গে ৩২ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়ে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন ম্যাথুস। ৩৪ রানে অপরাজিত থাকেন এই লঙ্কান অধিনায়ক। ২০ রানে অপরাজিত ছিলেন থিরিমান্নে।

দুই ইনিংস মিলে ৭ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন লঙ্কান পেসার ধামিকা প্রসাদ।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই