মেইন ম্যেনু

পাকিস্তানের দৃষ্টিভঙ্গি না বদলানো খুবই দুঃখজনক

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদণ্ড বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট বহাল রাখায় পাকিস্তানের উদ্বেগ প্রকাশ প্রসঙ্গে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, পাকিস্তান আমাদের এখানে গণহত্যা চালিয়েছে, আমাদের ৩০ লাখ লোককে হত্যা করার জন্য দায়ী। কাজেই এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যারা সংযুক্ত তাদের শাস্তি হলে পাকিস্তানের তো খুশি হওয়ার কোনো কারণ থাকতে পারে না। তারা এ সমস্ত কথা বলবে, এটা খুব স্বাভাবিক। তবে বর্তমান যুগের প্রেক্ষিতে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টানো উচিৎ ছিল। সেটা তারা পাল্টায়নি এটা খুবই দুঃখজনক।

রোববার বিকেলে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে এসব কথা বলেন রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ এই আইনি কর্মকর্তা।

নিজামীর রিভিউ খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রায়টা কবে লিখে সবাই সই করবেন এটা তো বিচারপতিদের বিষয়। আমরা সবাই আশা করছি যে শিগগিরই আমরা রিভিউর রায়টা পাবো।

জামায়াত নেতা নিজামীর রিভিউর রায় খারিজ হয়ে যাওয়ার পর শুক্রবার পাকিস্তান গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে পাকিস্তান সরকার। দেশটির গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হয়। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘১৯৭১ সালের ঘটনাবলীর প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশে চলমান বিতর্কিত বিচার নিয়ে আন্তর্জাতিক মহল ও মানবাধিকার সংস্থাগুলোর প্রতিক্রিয়ার দিকে নজর রাখছে পাকিস্তান। ১৯৭৪ সালের ত্রিপক্ষীয় চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশে সমঝোতা প্রয়োজন।

চুক্তি অনুযায়ী ১৯৭১ এর ঘটনাবলী পেছনে ফেলে এগিয়ে যাওয়ার কথাও বলা হয়েছে বিবৃতিটিতে।

একই সঙ্গে গত শুক্রবার পাঞ্জাবের আইনসভায় নিজামীর রিভিউ পিটিশন খারিজ হয়ে যাওয়ায় সর্বসম্মতিক্রমে উদ্বেগ প্রকাশ করে একটি প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে। পাঞ্জাবের আইনসভার সদস্য ও স্থানীয় জামায়াত-ই-ইসলামী নেতা ওয়াসিম আখতার এই প্রস্তাব উত্থাপন করেন।

প্রস্তাবটিতে যুদ্ধাপরাধী নিজামীর মৃত্যুদণ্ড ঠেকাতে পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকারকে ওআইসি ও জাতিসংঘের শরণাপন্ন হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

১৯৭১ সালে বুদ্ধিজীবী হত্যার পরিকল্পনাকারী ও উসকানিসহ মানবতাবিরোধী তিনটি অপরাধের দায়ে গত ৬ জানুয়ারি নিজামীর ফাঁসির রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। এই রায়ের রিভিউ চেয়ে আবেদন করা হলে গত বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ রিভিউ পিটিশন খারিজ করে দেন।






মন্তব্য চালু নেই