মেইন ম্যেনু

পাকিস্তানে গ্রেফতার প্রাচীন বট-বৃক্ষ, মুক্তির অপেক্ষা

হাল আমলে নয়, এই বট গাছটিকে গ্রেফতার করা হয় বৃটিশ আমলে। সেও এক মজার কাহিনি। কিন্তু আরও মজার বিষয় হল, ১১৮ বছর আগে গ্রেফতার হওয়া গাছটি স্বাধীন পাকিস্তানেও মুক্তি পায়নি।

গাছটিকে গ্রেফতার করা হয় ১৮৯৮ সালে। বৃটিশ অর্মি অফিসার জেমস স্কুইড-এর নির্দেশে গাছটিকে গ্রেফতার করে বন্দি করা হয়। শোনা যায়, একদিন নেশাগ্রস্ত অবস্থায় ওই পথ দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে স্কুইড দেখেন, গাছটি তাঁর দিকে এগিয়ে আসছে। বারবার তিনি গাছটিকে এগিয়ে আসতে নিষেধ করেন। কিন্তু মদ্যপকে যেন ধরতে এগিয়ে যায় বট-বৃক্ষ।

নেশাগ্রস্ত সেনাকর্তা তখনই বলে দেন, এই গাছকে উচিত শিক্ষা দিতে হবে। গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। কর্তার ইচ্ছায় কর্ম। সঙ্গে সঙ্গেই বিশাল বট গাছটিকে শেকল দিয়ে বেঁধে ফেলা হয়। আজীবন বন্দি রাখার রায় দিয়ে দেন। তার পরে বৃটিশ অর্মি অফিসার জেমস স্কুইড-এর নেশা কেটে গেলেও বট গাছের মুক্তি মেলেনি। আজ এত বছর পরেও সে বন্দি। মুক্তির অপেক্ষায় দিন গুনছে।

শুধু গাছকে গ্রেফতার করাই নয়, স্থানীয় বাসিন্দাদেরও হুমকি দেওয়া হয়— এই গাছকে কেউ মুক্ত করলে তাকেও শাস্তি পেতে হবে। সেই হুমকির ভয়েই কিনা কে জানে আজও পাকিস্তানের লান্ডি কোটাল আর্মি ক্যান্টনমেন্টে গেলে দেখা যাবে লোহার শিকলে বন্দি সেই গাছকে। তার গায়ে লেখা— ‘আই অ্যাম আন্ডার অ্যারেস্ট।’ -এবেলা






মন্তব্য চালু নেই