মেইন ম্যেনু

পাকিস্তানে হামলার পরিকল্পনা ছিলো ইন্দিরা গান্ধীর

পাকিস্তানের পরমাণু ঘাঁটিগুলোর ওপর সামরিক হামলা করতে চেয়েছিলেন ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী। ১৯৮০ সালে ক্ষমতায় আরা পর এই পরিকল্পনার মূল উদ্দেশ্য ছিল পাকিস্তানকে পরমাণু অস্ত্র তৈরি থেকে দূরে রাখা।

মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি (সিআইএ)-এর প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছ। সোমবার নিজস্ব ওয়েবসাইটে ইন্দিরা গান্ধীকে নিয়ে ১২ পৃষ্ঠার একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে সিআইএ।

ওই প্রতিবেদনটি ১৯৮১ সালের ৮ সেপ্টেম্বর ‘ইন্ডিয়ান রিএ্যাকশন টু নিউক্লিয়ার ডেভলপমেন্টস ইন পাকিস্তান’ শিরোনামের তৈরি করা হয়েছিল।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাকিস্তানের পরমাণু কর্মসূচির অগ্রগতি নিয়ে দুঃচিন্তায় থাকতেন ইন্দিরা গান্ধী। ইন্দিরা জেনেছিলেন পরমাণু অস্ত্র তৈরি করতে ইসলামাবাদ বেশ আগ্রহী এবং তারা কাজ শুরু করে দিয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, ওই সময় পাকিস্তানের প্রশাসন অত্যন্ত দ্রুত গতিতে প্লুটোনিয়াম ও ইউরেনিয়াম সংগ্রহ করা শুরু করছিলো। তাই নিজ দেশ ভারতকে প্রতিবেশী দেশের কাছ থেকে সুরক্ষা করতেই পাকিস্তানে সামরিক হামলার কথা ভাবছিলেন ইন্দিরা গান্ধী।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, আগামী দুই তিন মাসে যদি পরিস্থিতি না পাল্টায় তাহলে ইন্দিরা হয়ত পাকিস্তানে সামরিক হামলা চালাতেন। পাকিস্তানকে সহায়তা করতে যুক্তরাষ্ট্র বেশ আগ্রহী ছিল। তাই ভারতও আর্ন্তজাতিক সমর্থন পেতে দৌড়ঝাপ শুরু করেছিলেন।

এতে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, আর্ন্তজাতিক সমর্থন হিসেবে সোভিয়েত ইউনিয়নের (বর্তমান রাশিয়ার) সহায়তা চেয়েছিলেন। আরব লিগের দেশগুলো ভারতকে সমর্থন না করায় পাকিস্তানে হামলা করা থেকে নিজেকে বিরত রাখেন ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, পাকিস্তানের কাছে এফ-১৬ যুদ্ধবিমান সরবরাহ করার জন্য বেশ আগ্রহী ছিল যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দফতর।

সূত্র: দ্য ডেইলি স্টার, দ্য ইকোনোমিক টাইমস, দ্য নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, পিটিআই






মন্তব্য চালু নেই